বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রানা দাশগুপ্ত বলেন, আমরা সুনামগঞ্জের শাল্লার ঘটনাগুলো পর্যবেক্ষণ করছি। যাঁরা এই ঘটনার জন্য দায়ী, তাঁরা জামিনে আছেন কিন্তু ঝুমন নির্দোষ হওয়া সত্ত্বেও আজও তাঁর জামিন দেওয়া হলো না। ঝুমন দাস অনতিবিলম্বে জামিন পাবেন বলেও আশা করেন তিনি।

default-image

এর আগে সংবাদ সম্মেলনে মূল বক্তব্য পাঠ করেন রানা দাশগুপ্ত। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, দেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি ঘাপটি মেরে বসে আছে এবং প্রবল শক্তি সঞ্চয় করছে। গত এক-দেড় বছর এ দেশের বিভিন্ন জেলায় সাম্প্রদায়িক হামলা ও সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ধারাবাহিকভাবে ঘটে চলেছে।

সংবাদ সম্মেলন থেকে অনতিবিলম্বে সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করার দাবি জানানো হয়। এ ছাড়া জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশনার অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন বাস্তবায়ন, পার্বত্য চুক্তি ও পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন এর যথাযথ বাস্তবায়ন ও সমতলের সংখ্যালঘু জাতিসত্তাগুলোর ভূমি রক্ষায় স্বতন্ত্র ভূমি কমিশন গঠন এবং আইনের ৯৭ ধারা বাস্তবায়নের দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলন শেষে দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি উদ্বোধন করা হয়। রানা দাশগুপ্ত জানান, আগামী নভেম্বরে ১ লাখ গণস্বাক্ষরসংবলিত স্মারকলিপি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় দেওয়া হবে। একই দাবিতে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সারা দেশ থেকে লংমার্চ করে ঢাকায় সমাবেশ করা হবে বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন