দিনাজপুরের বিরামপুরে বিকাশের প্রায় ১২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে তা ছিনতাইয়ের ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই অভিযোগে বিকাশের কর্মী আবদুর রউফের বিরুদ্ধে গতকাল সোমবার বিরামপুর থানায় মামলা করা হয়েছে।

বিকাশের দিনাজপুর অঞ্চলের পরিবেশক মো. মোস্তাফিজুর রহমান মামলাটি দায়ের করেন। এই মামলার আসামি আবদুর রউফ (২৮) বিকাশের ডিএসও হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তাঁর বাড়ি নবাবগঞ্জ উপজেলার ভোটারপাড়া গ্রামে। তাঁকে গতকাল সোমবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গত রোববার দুপুরে রউফ বিরামপুর বিকাশ কেন্দ্র থেকে ১১ লাখ ৯১ হাজার টাকা নিয়ে তা বিকাশ এজেন্টদের দিতে চলে যান। বিকেলে রউফ বিরামপুর কার্যালয়ের সুপারভাইজার আশরাফুল ইসলামকে মুঠোফোনে জানান, বিরামপুর-নবাবগঞ্জ সড়কের কচুয়ারমোড় এলাকায় ছিনতাইকারীরা তাঁকে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে তাঁর কাছে থাকা সব টাকা নিয়ে গেছে।

মোস্তাফিজুর রহমান আরও জানান, আশরাফুল তাঁকে টাকা ছিনতাইয়ের বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে জানান। খবর পেয়ে তিনি বিরামপুরে আসেন। পরে তাঁরা ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন, ওই এলাকায় টাকা ছিনতাইয়ের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তাই সন্দেহ হওয়ায় তাঁরা রউফকে পুলিশে সোপর্দ করেন।

মোস্তাফিজুর রহমান অভিযোগ করেন, রোববার রাতেই রউফের বাবাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা তাঁদের পাঁচ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করার প্রস্তাব দেয়। এতে টাকা আত্মসাতের বিষয়টি ধরা পড়ে।

টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আবদুর রউফ। তিনি গতকাল সকালে বিরামপুর থানা হেফাজতে থাকাকালীন দাবি করেন, বিরামপুর কার্যালয় থেকে তিনি ১১ লাখ ৯১ হাজার টাকা নিয়ে যাওয়ার পর কয়েকজন এজেন্টকে ২ লাখ ২১ হাজার দেন। বাকি ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা নিয়ে মোটরসাইকেলে নবাবগঞ্জে যাওয়ার পথে কচুয়ারমোড়ে পৌঁছলে দুর্বৃত্ত তাঁকে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে তাঁর কাছে থাকা ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকার ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন