স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, সাম্প্রতিক একটি অশুভ শক্তির পাঁয়তারা লক্ষ করা যাচ্ছে। টার্গেট করে বুদ্ধিজীবী, শিল্পী, শিক্ষক, সংখ্যালঘু মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। এমনকি দলীয় নেতা-কর্মীকে হত্যা করা হচ্ছে। এ জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করেন তিনি। 

আজ শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪-দলীয় জোটের যৌথসভায় সূচনা বক্তব্যে নাসিম এসব কথা বলেন। ৮ মে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ১৪ দলের গণসমাবেশ সফল করতে এই যৌথসভার আয়োজন করা হয়।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ক্ষমতাসীন দল দেশ পরিচালনার সময় ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকতে পারে। এ জন্য মিডিয়া আছে, রাজনৈতিক দল বা বিভিন্ন ফোরাম আছে। কিন্তু অগণতান্ত্রিক, অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতা পরিবর্তনের নেতৃত্ব দেন খালেদা জিয়া এবং তাঁর জোট। জ্বালাও–পোড়াও, হত্যা, নির্যাতনেও তাঁরা ভূমিকা রেখেছে।
নাসিম বলেন, ‘১৪ দল মাঠে ছিল, মাঠে থাকবে। নাশকতা যারা করতে চেয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে ঢাকা শহরের পাড়া-মহল্লায় আমরা সমাবেশ করব এবং ১৪ দলের নেতৃত্বে প্রতিরোধী কমিটি গড়ে তুলব।’ 
যৌথসভায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আবুল হাসনাত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক শাহাদত হোসেন, বাসদের আহ্বায়ক রেজাউর রশিদ খান, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওসার, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আকতার, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন