default-image

ফেসবুকে সরকারবিরোধী স্ট্যাটাস দেওয়ার অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। আহসানুল বান্না তামিম নামের ওই শিক্ষার্থী সমাজতত্ত্ব বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে পড়েন।

গত ১২ এপ্রিল বন্ধ ক্যাম্পাস থেকে তাঁকে হাটহাজারী থানায় নিয়ে যায় ছাত্রলীগের উপপক্ষ চুজ ফ্রেন্ডস উইথ কেয়ার(সিএফসি) ও সিক্সটি নাইনের নেতা-কর্মীরা। ওদিনই তাঁর বিরুদ্ধে সিএফসির এক কর্মী বাদি হয়ে মামলা করেন। পরে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম। তবে আজ রোববার বিষয়টি জানাজানি হয়।

১২ এপ্রিল চট্টগ্রামের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দেওয়া এক আবেদনে তদন্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম বলেন, মামলার প্রাথমিক তদন্তে ওই ছাত্র ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫/৩১ ধারায় অপরাধ করেছেন বলে সত্যতা পাওয়া গেছে। অতএব মামলা সুষ্টু তদন্তের স্বার্থে আসামীকে জেল হাজতের আটকে রাখার ব্যবস্থা করিতে সদয় মর্জি হয়।

তামিমের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন সিএফসির কর্মী মোমিনুল ইসলাম। এ বিষয়ে জানতে তাঁকে বেশ কয়েকবার ফোন করলেও সাড়া পাওয়া যায়নি। মামলার সাক্ষী সিএফসির আরেক কর্মী সাদাফ খান প্রথম আলোকে বলেন, তামিম দীর্ঘদিন ধরে ফেসবুকে সরকারবিরোধী বিভিন্ন উস্কানিমূলক লেখালেখি করে আসছিলেন। ছাত্রলীগের বিরুদ্ধেও তাঁর লেখা ছিল। গত ১২ এপ্রিল তাঁকে ক্যাম্পাসে জুনিয়ররা দেখতেপান। পরে জ্যেষ্ঠ নেতারা সহ তাঁকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। মামলা হয়।

বিজ্ঞাপন

ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মীর দাবি, আহসানুল বান্না তামিম ছাত্রলীগের আরেক উপপক্ষ বিজয়ের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। সে বিজয়ের মাধ্যমে আলাওল হলে আসন পেয়েছিলেন। তবে তামিম বিজয়ের কেউ নন বলে জানান উপপক্ষটির নেতা সাবেক অর্থ সম্পাদক জাহেদুল আওয়াল। তিনি বলেন, এ নামে তিনি কাউকে চেনেন না। বিজয়ে এ নামের কেউ নেই।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যাল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, তামিম বিজয়ের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে তিনি জেনেছেন। দীর্ঘদিন ধরে ওই ছাত্র সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী লেখালেখি করছেন ফেসবুকে। যার প্রমাণ তাঁদের হাতে রয়েছে। পাঁচ-সাতটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট রয়েছে তামিমের।

তিনি বলেন, তামিম হেফাজত নেতা মামুনুল হককে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান বলে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। নরেন্দ্র মোদীর আগমনের বিরোধিতা করেছিল। ধর্মীয় উস্কানিও দিয়েছিল। এরকম আরও ২২ টা পোস্ট রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হকও একই কথা বলেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন