ঢাকার খালগুলোকে হাতিরঝিলের মতো করার পরিকল্পনা সরকারের

বিজ্ঞাপন
default-image

ঢাকার খালগুলোকে সংস্কার করে হাতিরঝিলের মতো দৃষ্টিনন্দন করে গড়ে তোলার পরিকল্পনা করেছে সরকার। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেছেন, ঢাকার খালগুলোকে পারস্পরিক সংযোগ করে নৌপথ হিসেবে ব্যবহারের উপযোগী করলে সড়কে যানবাহনের চাপ অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

এদিকে নগরবাসীর ভোগান্তি কমাতে খালগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ওয়াসার ড্রেনেজ সার্কেল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) কাছে হস্তান্তরের প্রস্তাব দিয়েছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম।

আজ শনিবার আশকোনা হজক্যাম্প থেকে সিভিল এভিয়েশন অফিসার্স কোয়ার্টার হয়ে বনরূপা হাউজিং পর্যন্ত খনন করা খালের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এই প্রস্তাব দেন।

প্রায় ১ দশমিক ৯০ কিলোমিটার দীর্ঘ খালটি খনন করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। গত ৩০ মে শুরু হওয়া খননকাজ আজ শনিবার শেষ হয়েছে। খালটি খননের ফলে উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের একাংশ, কসাইবাড়ী, আশকোনা, কাওলাসহ আশেপাশের এলাকার জলাবদ্ধতা অনেকাংশে দূর হবে।

খনন করা খালের উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে তাজুল ইসলাম বলেন, ঢাকা ও এর আশপাশের বিভিন্ন নদ-নদী দখলমুক্ত করতে একটি মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ঢাকা শহরে খালগুলো সংস্কার করে হাতিরঝিলের মতো করে গড়ে তুলতে কাজ করছে সরকার।

মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, খালগুলো রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ওয়াসার। কিন্তু জনগণের দুর্ভোগের কথা শুনতে হয় সিটি করপোরেশনকে। জনপ্রতিনিধি হিসাবে মেয়র ও কাউন্সিলরদের জবাবদিহি করতে হয়। কিন্তু ওয়াসাকে জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে হয় না। তাই বিদ্যমান জনবল, যন্ত্রপাতিসহ ওয়াসার খাল ও ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনা সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর করার প্রস্তাব জানাচ্ছি।

অনুষ্ঠানে ডিএনসিসির প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিরুল ইসলাম, ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনিছুর রহমান, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর জাকিয়া সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন