বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুক্রবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস, ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেল চলাচল করছে। মহাদেবপুর থেকে টেপড়া পর্যন্ত ছয়-সাতটি স্থানে সরু ও ছোট সেতুর ওপর দিয়ে যানবাহনগুলো ধীরগতিতে পার হচ্ছে। মহাদেবপুর থেকে টেপড়া পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়কে ধীরগতিতে যানবাহন চলছে। বিভিন্ন স্থানে পুলিশ সদস্যরা যানজট নিরসনে তৎপর রয়েছেন। টেপড়া এলাকায় তল্লাশিচৌকিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যরা ব্যক্তিগত গাড়িগুলোকে দক্ষিণ দিকে নালী সড়ক হয়ে পাটুরিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাটের দিকে পাঠান।

ফরিদপুরগামী গোল্ডেন লাইন পরিবহনের একটি বাসের যাত্রী সোহরাব হোসেনের সঙ্গে মহাদেবপুর এলাকায় সকালে কথা হয়। তিনি বলেন, সাহ্‌রি খেয়ে ঢাকার সাভার থেকে গাড়িতে উঠেছেন। ধীরগতিতে বাস চলাচলের কারণে প্রায় দ্বিগুণ সময় লাগছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাসের চেয়ে লোকাল (ঢাকা থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত) বাস চলাচল বেশি করছে। এসব বাসের যাত্রীরা পাটুরিয়া থেকে লঞ্চ ও ফেরিতে নদী পারাপার হয়ে গন্তব্যে ছোটেন।

জেলা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (প্রশাসন) মো. মেরাজুল ইসলাম বলেন, মহাসড়কে কোথাও যানজট সৃষ্টি হয়নি। চালকেরা নির্ধারিত লেন ব্যবহার করলে যানজটে যাত্রীদের ভোগান্তি হবে না।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন