ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০তম সমাবর্তন শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় শারীরিক শিক্ষাকেন্দ্রের খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। এই সমাবর্তনে ১৭ হাজার ৮৭৫ জন স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীকে সনদ দেওয়া হবে। এ ছাড়া ৮০ জনকে ৯৪টি স্বর্ণপদক, ৬১ জনকে পিএইচডি ও ৪৩ জনকে এমফিল ডিগ্রি দেওয়া হবে।

আজ বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবদুল মতিন চৌধুরী ভার্চ্যুয়াল শ্রেণিকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক এসব তথ্য জানান। তিনি সমাবর্তন অনুষ্ঠান সফল করতে সবার সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন, সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। অনুষ্ঠানের সার্বিক নিরাপত্তাও নিশ্চিত করা হয়েছে।

সমাবর্তনে সভাপতিত্ব করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সমাবর্তন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে বিশাল প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছে। ক্যাম্পাসে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।

সংবাদ সম্মেলনের তথ্য অনুযায়ী, সমাবর্তন বক্তব্য দেবেন কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অন্টারিওর প্রেসিডেন্ট ও উপাচার্য অমিত চাকমা। সমাবর্তনে তাঁকে সম্মানসূচক ডক্টর অব সায়েন্স ডিগ্রি দেওয়া হবে।

অমিত চাকমা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রাসায়নিক প্রকৌশলী। তাঁর জন্ম ১৯৫৯ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের এক চাকমা পরিবারে। তিনি কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অন্টারিওর দশম প্রেসিডেন্ট। তিনি বাংলাদেশে উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের পড়াশোনা শেষে আলজেরীয় সরকারের বৃত্তি নিয়ে আলজেরিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগ থেকে ১৯৭৭ সালে প্রথম স্থান অধিকার করে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। পরে কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়া থেকে রাসায়নিক প্রকৌশল বিষয়ে এমএসসি এবং পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

১৯৮৮ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ইউনিভার্সিটি অব ক্যালগারির রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগে অধ্যাপক, ১৯৯৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব রেজিনায় রাসায়নিক প্রকৌশল বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালে ইউনিভার্সিটি অব ওয়াটারলুর ভাইস প্রেসিডেন্ট (একাডেমিক) ও প্রভোস্টের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বিশ্বব্যাপী খ্যাতি অর্জন করেছেন প্রাকৃতিক গ্যাস প্রকৌশল এবং পেট্রোলিয়াম বর্জ্য ব্যবস্থাপনাবিষয়ক গবেষণার জন্য।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0