বিজ্ঞাপন

আজ বৃহস্পতিবার কলিমুল্লাহর আইনজীবী শহীদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ১৫ মে দেওয়া চিঠির বৈধতা নিয়ে গত রোববার রিটটি করা হয়েছে। এতে তদন্ত ও চিঠির কার্যক্রম স্থগিত চাওয়া হয়েছে। আগামী সপ্তাহে বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চ্যুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চে রিটের ওপর শুনানি হতে পারে।

উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) গঠিত তদন্ত কমিটি। কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক বিশ্বজিৎ চন্দ। অপর দুই সদস্য হলেন ইউজিসির জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব জমাল উদ্দিন ও ইউজিসির সদস্য আবু তাহের।

উপাচার্যের বিরুদ্ধে ওঠা উল্লেখযোগ্য অভিযোগগুলো হচ্ছে, রাষ্ট্রপতির নির্দেশনা অমান্য করে ক্যাম্পাসে ধারাবাহিক অনুপস্থিতি, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা ধামাচাপা দেওয়া, ইউজিসির নির্দেশনা অমান্য করে জনবল নিয়োগ, শিক্ষক ও জনবল নিয়োগে দুর্নীতি ও অনিয়ম, নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ভিসি হয়েও অনুপস্থিতি থাকা, নিরাপত্তাহীন ক্যাম্পাস, ইচ্ছেমতো পদোন্নতি, আইন লঙ্ঘন করে একাডেমিক ও প্রশাসনিক পদ দখল এবং ক্রয়প্রক্রিয়ায় নীতিমালা লঙ্ঘন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন