বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাদা দলের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘তাজমেরী এস ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন খ্যাতিমান ও সফল শিক্ষকই শুধু ছিলেন না, ছিলেন অত্যন্ত জনপ্রিয় একজন শিক্ষক নেতা। একজন রসায়নবিদ হিসেবে তিনি কেবল দেশে নয়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও সমানভাবে পরিচিত। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের চেয়ারম্যান, বিজ্ঞান অনুষদের একাধিক মেয়াদে নির্বাচিত ডিন, রোকেয়া হলের প্রাধ্যক্ষ, শিক্ষক সমিতির সভাপতি এবং সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্য হিসেবেও সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। এমন একজন কৃতী শিক্ষাবিদকে ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর মারপিটসহ দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় উত্তরা পশ্চিম থানায় হওয়া মিথ্যা, বানোয়াট ও হয়রানিমূলক মামলায় গ্রেপ্তার ও জামিন বাতিল করে কারান্তরীণ করার ঘটনাকে আমরা সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করি।’

বিবৃতিতে বিএনপিপন্থী শিক্ষকেরা আরও বলেন, ‘রাজনৈতিক ভিন্নমত দলন ও বিএনপিকে ধ্বংস করে নিজেদের রাজনৈতিক একাধিপত্য বজায় রাখার জন্য সরকার যে ঘৃণ্য পন্থা অবলম্বন করছে, তাজমেরী ইসলামের কারান্তরীণের ঘটনা এরই অংশ বলে আমাদের ধারণা। অধ্যাপক তাজমেরী কেবল একজন শিক্ষাবিদ নন, তিনি একজন নারী ও জ্যেষ্ঠ নাগরিক। মিথ্যা মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার ও কারাগারে পাঠানোর ঘটনাকে আমরা মানবাধিকারের পরিপন্থী বলেও মনে করি।’

শিক্ষকসমাজ বলেছে, তাজমেরীর প্রতি সরকারের আচরণ নির্মম। এ ঘটনায় তারা ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত।অবিলম্বে ‘মিথ্যা মামলা’ প্রত্যাহার করে তাজমেরী এস ইসলামকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছে সাদা দল।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন