দক্ষিণ এশিয়ার গণমাধ্যম ও সাংস্কৃতিক নৃতত্ত্ব নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয়েছে দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলন। আজ বুধবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনের এই সম্মেলন শুরু হয়।

‘ভিজ্যুয়াল সাউথ এশিয়া: গণমাধ্যম ও সংস্কৃতির নৃতাত্ত্বিক অন্বেষণ’ শীর্ষক এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগ ও নয়াদিল্লির সাউথ এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সমাজবিজ্ঞান বিভাগ। বিশ্বব্যাংক ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্প (হেকেপ) এই সম্মেলনের আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। তিনি বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার এই অঞ্চলটি সাংস্কৃতিক, নৃতাত্ত্বিক ও প্রযুক্তিগত প্রেক্ষাপটে বেশ বৈচিত্র্যপূর্ণ। সব বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজই হচ্ছে সত্য খোঁজা, সত্য উদ্‌ঘাটন করা এবং সত্যকে সুরক্ষা করা। আর একমাত্র সত্যই চূড়ান্তভাবে টিকে থাকবে।

আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘ভিজ্যুয়াল ক্যারেক্টার ও ভিজ্যুয়াল উপস্থাপনা সত্য ঘটনার বর্ণনা ও অবস্থান নিশ্চিত করে। তাই আমাদের দক্ষিণ এশিয়ায় ভিজ্যুয়াল মিডিয়ার মাধ্যমে সত্যের ধারণার বিকাশ করতে হবে।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাইফুর রশীদ। এরপর বক্তব্য দেন নয়াদিল্লির সাউথ এশিয়ান ইউনিভার্সিটির সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক দেভ পাঠক। তিনি বলেন, ভিজ্যুয়াল মিডিয়া খুব দ্রুত ছড়ায়। এটা এক দেশ থেকে আরেক দেশে যেতে কোনো ভিসা লাগে না। তাই দক্ষিণ এশিয়ার জন্য এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এতে করে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর নৃতত্ত্ববিদ, শিল্পীদের মধ্যে খুব সহজে নেটওয়ার্ক গড়ে উঠবে।

দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনে দেশি-বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানীরা নৃতত্ত্ব, গণমাধ্যম, আলোকচিত্র, চলচ্চিত্র, পুরাতত্ত্ব, সংস্কৃতিসহ ৭০টি প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক হাসান আল শাফী, হেকেপ প্রকল্প পরিচালক অতিরিক্ত সচিব গৌরাঙ্গ চন্দ্র মহন্ত, যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মারকাস বাংকস, অস্ট্রেলিয়ার কারটিন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক বব পোকরানট প্রমুখ বক্তব্য দেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0