ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দি উপজেলার রায়পুর বাসস্ট্যান্ডে আজ বৃহস্পতিবার দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুজন নিহত ও ৪০ জন আহত হয়েছে।

নিহত দুজন হলেন বিপুল পরিবহনের চালকের সহকারী স্বপন মিয়া (৩০) ও  সুপারভাইজার রফিকুল ইসলাম (২৫)। স্বপনের বাড়ি নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের কুতুবপুর গ্রামে এবং রফিকুলের বাড়ি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে। লাশ দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।

 দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, টাঙ্গাইল থেকে বিপুল পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস চট্টগ্রামে যাচ্ছিল। পথে সকাল সাড়ে সাতটার দিকে অন্য একটি বাসকে অতিক্রম করতে গিয়ে বিপরীত দিক থেকে আসা ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেসের বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় বিপুল পরিবহনের। এতে স্বপন ঘটনাস্থলেই এবং ঢাকায় নেওয়ার পথে রফিকুলের মৃত্যু হয়। আহত হন ৪০ জন যাত্রী।

আহত যাত্রীদের মধ্যে শাহরাস্থী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিত্সক মুসফিক বিন বাকের, এস এম খালেদ, খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইনের পুলিশ কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমান ও দেলোয়ার হোসেন, কুমিল্লার খামারপাড়ার সার্জেন্ট মনোয়ার হোসেন, বিপুল পরিবহনের বাসের চালক চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের পূর্ব ইছাখালীর জসিম উদ্দিন, জামালপুরের সরিষাবাড়ী সদরের পারভেজ মিয়া ও জগন্নাথপুরের সাজিদ হাসান, নোয়াখালী সদরের জালিয়ানপাড়ার সুজন ও সোহেল, সন্দ্বীপের মগদরার বাবর মিয়া ও  রহমতপুরের নজরুল ইসলাম, টাঙ্গাইলের লেচুরিয়ার গোলাম মোস্তাফা, ঘাটাইলের ফুলহরার বাবুল মিয়া, আকুরটাকুরের জীবন কুমার ভট্টাচার্জ, বিশ্বাস বেতকার দুলাল চন্দ্র পাল, আটপাড়ার মোসলেম মিয়া, খানাপাড়ার নবকুমার সাহা, অজ্ঞাত দুই পুরুষকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

চাঁদপুরের কালিয়াপাড়ার ফিরোজ মিয়া, টাঙ্গাইলের পাকুটিয়ার উজ্জ্বল চন্দ্র সাহা, ঘাটাইলের ফুনুয়ার ইমাম হোসেন, সন্দ্বীপের পোশাকশ্রমিক সুরাইয়া আক্তার, দাউদকান্দির মালাখালার আবদুল হক, কমফিট কম্পোজিট কেন্ট লিমিটেডের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী নজরুল ইসলামকে দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিত্সা ও ভর্তি করা হয়।

দুর্ঘটনার পরপর খবর পেয়ে দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশ আধা ঘণ্টার মধ্যে দুর্ঘটনাকবলিত বাস দুটি অন্যত্র সরালেও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দি উপজেলার আমিরাবাদ এলাকা থেকে পুটিয়া পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে ঘরমুখো যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েন। দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের সহায়তায় সকাল ১০টার মধ্যে মহাসড়ক যানজটমুক্ত হয়। দাউদকান্দি থানায় সড়ক দুর্ঘটনা আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন