গত ১৪ এপ্রিল রপ্তানি পণ্যবোঝাই কনটেইনার নিয়ে সিঙ্গাপুরে যাচ্ছিল জাহাজটি। যাত্রাপথে বঙ্গোপসাগরের কুতুবদিয়ার কাছে একটি তেলবাহী ট্যাংকারের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় এমভি হাইয়ান সিটি জাহাজটির। এতে একটি খালি কনটেইনার জাহাজ থেকে সাগরে পড়ে যায়। জাহাজটির পেছনের অংশ ফুটো হয়ে পানি ঢুকে প্রায় সাত ডিগ্রি কাত হয়ে পড়ে। দুমড়েমুচড়ে যায় জাহাজটির এক পাশে থাকা কনটেইনার।

এ অবস্থায় দেশের রপ্তানি পণ্যের স্বার্থে বন্দর কর্তৃপক্ষ জাহাজটি বিশেষ ব্যবস্থায় জেটিতে ভেড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়। এ কাজে সহযোগিতা করে প্রান্তিক বেঙ্গল স্যালভেজ অ্যান্ড ডাইভিং নামে দেশীয় একটি প্রতিষ্ঠান। জাহাজটি বেসরকারি কর্ণফুলী ড্রাই ডক জেটিতে ভেড়ানো হয়। এ জন্য জেটির সামনে খননকাজ করা হয়।

জেটিতে ভেড়ানোর পরই শুরু হয় মূল মেরামতের কাজ। মেরামতের জন্য জাহাজটি থেকে ১৪৭টি কনটেইনার জেটিতে নামানো হয়। ২২টি কনটেইনার জাহাজের এক জায়গা থেকে সরিয়ে আরেক জায়গায় নেওয়া হয়। এরপর ফুটো হয়ে যাওয়া জাহাজের এক পাশে লোহার পাত বসানো হয়। প্রশিক্ষিত ডুবুরি ও নৌ প্রকৌশলীদের একটি দল দেড় মাসের চেষ্টায় জাহাজটি চলাচল উপযোগী করে তোলে।

জানতে চাইলে প্রান্তিক বেঙ্গল স্যালভেজ অ্যান্ড ডাইভিং কোম্পানির চেয়ারম্যান গোলাম সরওয়ার প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশে এর আগে এত বেশি ক্ষতিগ্রস্ত থাকা এত বড় জাহাজ মেরামত হয়নি। এটিই প্রথম। ক্ষতিগ্রস্ত জাহাজ মেরামত করে দেশীয় প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা প্রমাণিত হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন