default-image

দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) দন্তহীন বাঘ হলে চলবে না বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। এক রিটের শুনানিতে দুদকের আইনজীবীর উদ্দেশে আদালত বলেছেন, ‘দুদকের কাজ হলো দুর্নীতি ও মানি লন্ডারিং অপরাধ রোধ করা। এগুলো করতে গিয়ে আপনাকে সেই সিংহ হতে হবে, যার দাঁত আছে। ভাঙা দাঁত নিয়ে এ কাজ করতে পারবেন না। দন্তহীন বাঘ হলে চলবে না।’

বিজ্ঞাপন

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে রোববার ওই রিটের শুনানি হয়। আদালত মঙ্গলবার শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করেছেন। শুনানিতে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, ‘দুদক কখনো দন্তহীন বাঘ ছিল না ও এখনো নেই। আমরা সব সময় ভাইব্রেন্ট।’ আইনজীবীর উদ্দেশে আদালত বলেন, ‘দেশ ও জাতির জন্য কাজ করেন।’ তখন খুরশীদ আলম খান বলেন, ‘অবশ্যই’।

বিভিন্ন বাংলাদেশি নাগরিক ও কোম্পানির পাচারের মাধ্যমে বিদেশি ব্যাংকগুলোয়, বিশেষত সুইস ব্যাংকে গোপনে জমা রাখা বিপুল অর্থ উদ্ধারে অবিলম্বে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে নির্দেশনা চেয়ে ১ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আবদুল কাইয়ুম খান ও সুবীর নন্দী দাস ওই রিট করেন। আদালতে রিটের পক্ষে আইনজীবী আবদুল কাইয়ুম খান শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক।

রিটে বিভিন্ন বাংলাদেশি নাগরিক ও কোম্পানির পাচারের মাধ্যমে বিদেশি ব্যাংকগুলোয়, বিশেষত সুইস ব্যাংকে গোপনে জমা রাখা অর্থ উদ্ধারে বিবাদীদের ব্যর্থতা ও নিষ্ক্রিয়তা কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, এ বিষয়ে রুল চাওয়া হয়েছে। সুইস ব্যাংকসহ বিদেশে বাংলাদেশি নাগরিকদের অতীতে ও বর্তমানে এ ধরনের অর্থ পাচার ও সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন পর্যবেক্ষণ, তদারকি ও নিয়ন্ত্রণে বিশেষ তদন্ত দল গঠনের নির্দেশনাও চাওয়া হয়েছে রিটে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন