ঘোড়াশাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে মেরামত প্রকল্পের নামে ২ হাজার ৬০০ কোটি টাকা লুটপাটের অভিযোগ নথিভুক্তির মাধ্যমে নিষ্পত্তি করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
অনুসন্ধানে দুর্নীতির কোনো তথ্য-প্রমাণ না পাওয়ায় অভিযুক্তদের অব্যাহতি দিয়ে অভিযোগটি নথিভুক্তির মাধ্যমে কমিশন নিষ্পত্তি করেছে বলে দুদক সূত্র জানিয়েছে।
দুদক সূত্র জানায়, নতুন একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে যে পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়, এর চেয়েও বেশি ব্যয়ে পুরোনো কেন্দ্র সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ আসে দুদকে। এতে বলা হয়, ঘোড়াশাল ৬ নম্বর ইউনিট রি-পাওয়ারিংয়ের জন্য সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয় প্রায় ২ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। ঘোড়াশাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের ওই ইউনিটটি অত্যন্ত পুরোনো। এর সনাতন প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি মেরামত কঠিন ও খুচরা যন্ত্রাংশ দুষ্প্রাপ্য। ফলে মেরামত না করে সম্পূর্ণ নতুন কেন্দ্র স্থাপনে খরচ অনেক কম হওয়ার কথা। নতুন কেন্দ্র করা হলে দেশ দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ-সুবিধা পেত।
২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে দুদকের উপপরিচালক হামিদুল হাসান এ অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু করেন। ওই বছরের ৩০ ডিসেম্বর অভিযোগটি নথিভুক্তির সুপারিশ করে প্রতিবেদন দাখিল করেন। দীর্ঘ পর্যালোচনা করে কমিশন ১১ জানুয়ারি এ অভিযোগ নথিভুক্তি করার অনুমোদন দিয়েছে।
নাসির গ্রুপের মামলার তদন্তে নতুন দুই কর্মকর্তা: নাসির গ্রুপের অর্থ পাচার মামলার তদন্তে দুই সদস্যের তদন্ত দল গঠন করেছে দুদক। গতকাল রোববার উপপরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী ও সৈয়দ ইকবাল হোসেনকে নিয়ে একটি তদন্ত দল গঠনের অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।
প্রায় ৫৮ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে গত ৮ মার্চ নাসির গ্রুপের চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন বিশ্বাসসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন দুদকের সহকারী পরিচালক এস এম রফিকুল ইসলাম। এ ছাড়া বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের সাবেক দুই পরিচালক মো. শফিকুর রহমান ও খন্দকার মামুন আলীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুদক। রোববার তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করে উপপরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলীর নেতৃত্ব তিন সদস্যের একটি দল।
ইউনাইটেড এয়ারওয়েজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন তাসবিরুল আহমেদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে অনিয়মের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক দর থেকে অনেক বেশি দামে ২০ বছরের পুরোনো উড়োজাহাজ কিনে শেয়ারবাজার থেকে ৪১৫ কোটি টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগ অনুসন্ধান করছে দুদক। সে অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে এঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এর আগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ক্যাপ্টেন তাসবিরুলকে ৮ ফেব্রুয়ারি দুদকে উপস্থিত থাকতে বলা হলেও তিনি সময় চেয়ে আবেদন করেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন