default-image

দেশে এ পর্যন্ত সাড়ে ১৯ লাখের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন। টিকার এই ডোজ গ্রহণকারীর সংখ্যা ১৯ লাখ ৬৭ হাজার ৯৭৫। এর মধ্যে পুরুষ ১৩ লাখ ৯৯৭ এবং নারী ৬ লাখ ৬৬ হাজার ৯৭৮ জন।

এদিকে টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৭ লাখ ৭৮ হাজার ৬৮৬ জন। এর মধ্যে ৩৫ লাখ ৮৪ হাজার ৩৬ জন পুরুষ এবং নারী ২১ লাখ ৯৪ হাজার ৬৫০। এ ছাড়া বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ৭১ লাখ ৮৪ হাজার ৪০৬ জন লোক টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ১ লাখ ৫১ হাজার ৯৮৮ জন টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন। তাঁদের মধ্যে পুরুষ ৯৫ হাজার ২৩৯ এবং নারী ৫৬ হাজার ৭৪৯ জন। আর প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১৬ হাজার ৮৮৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১০ হাজার ৫৯০ এবং নারী ৬ হাজার ১৯৪ জন।

এ পর্যন্ত ঢাকা বিভাগে টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৬ লাখ ১ হাজার ৫৫৮ জন। এর মধ্যে ঢাকা মহানগরীতে ২ লাখ ৯২ হাজার ১৭৬ জন। ঢাকা বিভাগে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১৭ লাখ ৯১ হাজার ৮৭০ ও ঢাকা মহানগরীতে নিয়েছেন ৯ লাখ ১০ হাজার ৭৯৪ জন।

ময়মনসিংহ বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৮৯ হাজার ২৬২ জন, প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন ২ লাখ ৮৭ হাজার ২৮৩ জন। চট্টগ্রাম বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪ লাখ ৩৬ হাজার ২৯০ জন, প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন ১১ লাখ ৭০ হাজার ৩১০ জন।

রাজশাহী বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২ লাখ ৫ হাজার ৮৫০ জন, প্রথম ডোজ ৬ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪৬ জন। রংপুর বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৮১ হাজার ৩০০ জন, প্রথম ডোজ ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৮৭৫ জন। খুলনা বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২ লাখ ৩৪ হাজার ১০৫ জন, প্রথম ডোজ ৭ লাখ ২৬ হাজার ৯৭৩ জন।

বরিশাল বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৮৮ হাজার ৬৭৬ জন, প্রথম ডোজ ২ লাখ ৪৯ হাজার ২১৮ জন এবং সিলেট বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ১ লাখ ৩০ হাজার ৯৩৪ জন, প্রথম ডোজ ২ লাখ ৯৯ হাজার ৩১১ জন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২৭ জানুয়ারি করোনার টিকা প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। ওই দিন ২১ জনকে টিকা দেওয়া হয়। পরদিন রাজধানীর ৫টি হাসপাতালে ৫৪৬ জনকে পর্যবেক্ষণমূলক টিকা দেওয়া হয়েছিল। এরপর গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশব্যাপী গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়। প্রথম টিকা নেওয়ার ৬০ দিন পর ৮ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে।

দেশে টিকা গ্রহণকারী ব্যক্তিদের মধ্যে এখনো তেমন কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন