default-image

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের টিকার তৃতীয় ধাপের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ (ট্রায়াল), গবেষণা ও উৎপাদনের প্রস্তাব দিয়েছে চীনের প্রতিষ্ঠান আনুই জিফেই। এ নিয়ে আলোচনার জন্য প্রতিষ্ঠানটির একটি প্রতিনিধিদল কয়েক দিনের মধ্যে ঢাকায় আসছে। আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে আনুই জিফেই নিজেদের টাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সঙ্গে করোনার টিকা পরীক্ষার প্রস্তাব দেয়। তাতে পরীক্ষা সফল হলে তারা বাংলাদেশে টিকার গবেষণার পাশাপাশি টিকা উৎপাদনের কারখানা স্থাপনের কথাও বলে।

সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের সিদ্ধান্তের পর চলতি মাসের শুরুতে বিএসএমএমইউ টিকা পরীক্ষার প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়ে আনুই জিফেইকে চিঠি দেয়।

বিজ্ঞাপন

আনুই জিফেইয়ের করোনার টিকার নাম আরভিডি-ডিমার। এর তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা চীনের পাশাপাশি উজবেকিস্তান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও ইকুয়েডরে সম্পন্ন হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২২ জানুয়ারি প্রথম আলোতে ‘চীনা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশকে করোনার টিকা উপহার দেবে’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে। সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে কয়েক কোটি টিকার ডোজ সরবরাহের কথা ভাবা হচ্ছে। তার একাংশ বাংলাদেশকে উপহার হিসেবে দেওয়া হবে। পরে ওই সূত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা গেছে, প্রকৃতপক্ষে বিষয়টি হবে চীনা প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে কয়েক কোটি টিকার ডোজ সরবরাহ করতে তৈরি আছে। যদি জরুরি ভিত্তিতে টিকার ডোজ সরবরাহের অনুমতি পায়, সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জনগণের জন্য টিকার ডোজের একটি অংশ উপহার হিসেবে দেওয়ার বিষয়টি ওই প্রতিষ্ঠানের বিবেচনায় আছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে চীনের টিকা উদ্ভাবন ও প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সিনোভ্যাক বাংলাদেশে তাদের টিকা পরীক্ষার প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু পরীক্ষায় অর্থায়ন-জটিলতায় সেই উদ্যোগ এগোয়নি।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন