সরকারি জায়গায় গড়ে তোলা দোকানঘর নিয়ে নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় গত মঙ্গলবার রাতে যুবলীগের দুই পক্ষে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চাটখিল-চট্টগ্রাম সড়কে চাটখিল পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ডে বলাকা পরিবহন কাউন্টার ও বহুরূপী ভিডিও ফুলবিতান নামের দুটি দোকানঘরের দখল নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে যুবলীগের স্থানীয় নেতা বেলায়েত হোসেন ও সংগঠনটির কর্মী মো. হুমায়ুন কবিরের বিরোধ চলে আসছিল। মঙ্গলবার রাতে হুমায়ুন কবির দোকান দুটির পাশের জায়গাটি দখল করতে গেলে বেলায়েত হোসেনের লোকজন তাঁদের বাধা দেন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় সজীব, সম্রাট ও বাবর নামের তিন যুবক আহত হন।
ঘটনার পর বেলায়েতের লোকজন হুমায়ুন কবিরের দখলে থাকা দোকানটি দখল করে নেন। এ সময় একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।
যুবলীগের নেতা বেলায়েত অভিযোগ করেন, ‘আমি নিজে সাবেক পৌর মেয়রকে অনুরোধ করে কিছু জায়গা ব্যবহারের কথা বলে হুমায়ুন কবিরকে দোকান করতে দিয়েছি। মঙ্গলবার গভীর রাতে হুমায়ুন কবির দলবল নিয়ে তাঁর দোকানের পাশের বাস কাউন্টারের জায়গা দখল করতে গেলে তাঁরা বাধা দেন। এ সময় সন্ত্রাসীরা কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।’
হুমায়ুন কবির দাবি করেন, ‘পূর্বপুরুষদের জায়গা খালি পড়ে থাকায় প্রায় পাঁচ বছর আগে ঘর তুলে আমি “বহুরূপী ভিডিও ফুলবিতান” নামের একটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছি। বেলায়েত দাপট দেখিয়ে আমাকে উচ্ছেদ করে মরিয়া হয়ে ওঠে এবং মঙ্গলবার রাতে হামলা-ভাঙচুর চালিয়ে দোকান দখল করে নেয়।’
গতকাল সন্ধ্যায় চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইব্রাহিম খলিল বলেন, এ ঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে। বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে মীমাংসার চেষ্টা চলছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0