টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় নাগবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মিল্টন সিদ্দিকীকে গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও মিছিল হয়েছে। টাঙ্গাইল শহরে গতকাল রোববার জেলা যৌন নির্যাতন নির্মূলকরণ নেটওয়ার্কের নেতৃত্বে এসব কর্মসূচি পালিত হয়।
ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূ চেয়ারম্যান মিল্টন সিদ্দিকীসহ দুজনকে আসামি করে কালিহাতী থানায় মামলা করেছেন। এজাহারে বলা হয়েছে, জমি নিয়ে বিরোধ মীমাংসার কথা বলে ১৪ মার্চ ইউপি চেয়ারম্যান ও তাঁর এক সহযোগী কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা রিসোর্টে গৃহবধূকে ডেকে আনেন। সেখানে ওই গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার হন। পরে তাঁরা উপজেলার তারান এলাকায় গৃহবধূকে ফেলে রেখে চলে যান। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার প্রথম আলোয় ‘চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।
গতকাল সকালে শহরের বিবেকানন্দ স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে জেলা যৌন নির্যাতন নির্মূলকরণ নেটওয়ার্কের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। এতে বিভিন্ন শ্রেণি–পেশার মানুষ অংশ নেন। পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা যৌন নির্যাতন নির্মূলকরণ নেটওয়ার্কের সভাপতি খান মোহাম্মদ খালেদ ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা শেলী, মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আজাদ, ব্র্যাকের জেলা প্রতিনিধি মুনির হোসেন খান, ব্লাস্টের সমন্বয়কারী আমিনা রহমান, আরডিএর নির্বাহী পরিচালক রওশন আরা প্রমুখ।
পরে চেয়ারম্যান মিল্টন সিদ্দিকীসহ দোষীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হয়।
পুলিশ সুপার মাহবুব আলম বলেন, মামলাটির তদন্তের দায়িত্বভার জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি) দেওয়া হয়েছে। জেলা ডিবির পুলিশের ওসি অশোক কুমার সিংহ বলেন, আসামি গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। চেয়ারম্যান পলাতক রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন