চট্টগ্রামের সদরঘাট থেকে সন্দ্বীপের গুপ্তছড়া পর্যন্ত নতুন নৌপথে যাত্রীবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হচ্ছে। আজ শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই নৌপথে জাহাজ চলাচল উদ্বোধন করবেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা সূত্র জানায়, সপ্তাহে চার দিন নতুন নৌপথে জাহাজ চলবে। এমভি বারআউলিয়া জাহাজ এই পথে চলবে। পাশাপাশি সদরঘাট থেকে সন্দ্বীপের পশ্চিম উপকূল পর্যন্ত পুরোনো নৌপথেও জাহাজ চলাচল চালু থাকবে। তবে নাব্যতা সংকটের কারণে সমস্যা হলে পুরোনো নৌপথে জাহাজ চলাচল বন্ধ রাখা হতে পারে।
নতুন এই নৌপথে যাত্রীরা যাতে নিরাপদে জাহাজ থেকে তীরে ওঠানামা করতে পারে, সে জন্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে আহ্বান জানিয়েছে ‘আমরা সন্দ্বীপবাসী’ নামের একটি সংগঠন। গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক মতবিনিময় সভা থেকে এই আহ্বান জানান সন্দ্বীপের বিশিষ্টজনেরা।
মতবিনিময় সভায় জানানো হয়, সন্দ্বীপের পশ্চিম উপকূলে চর জাগছে। ফলে চট্টগ্রামের সদরঘাট থেকে সন্দ্বীপের পশ্চিম উপকূলে যাত্রীবাহী জাহাজ চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ফলে সদরঘাট থেকে সন্দ্বীপের গুপ্তছড়া পর্যন্ত নৌপথ চালুর দাবি ওঠে।
নতুন নৌপথে যাতায়াতে যৌক্তিক ভাড়া নির্ধারণ ও যাত্রীদের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার আহ্বান জানান বক্তারা। এ ছাড়া চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপে অবৈধ নৌযানে যাত্রী পারাপার বন্ধ করারও আহ্বান জানান তাঁরা।
মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন আমরা সন্দ্বীপবাসীর সমন্বয়কারী চিকিৎসক রফিকুল মাওলা। বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হাছান মোহাম্মদ, শিল্পপতি নুরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি আনোয়ারুল কবির, চট্টগ্রাম চেম্বারের পরিচালক সারোয়ার হাসান জামিল, সন্দ্বীপ অ্যাসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সভাপতি শামসুল কিবরিয়া, সাংবাদিক সোহেল মাহমুদ, আমরা সন্দ্বীপবাসী সংগঠনের যুগ্ম সমন্বয়কারী সালেহ নোমান প্রমুখ। সভা সঞ্চালনা করেন ফোরকান উদ্দিন।
চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপে যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম নৌপথ।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন