নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকায় গ্যাসের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। অনেক বাসায় দিনেও গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে রমজান মাসে ব্যাপক দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন শহরের বাসিন্দারা। গ্যাস-সংকটের কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে শিল্পকারখানার স্বাভাবিক উৎপাদন-প্রক্রিয়া।
এদিকে গ্যাস-সংকট মোকাবিলায় তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড গত নভেম্বরে সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে পঞ্চবটী ১৬ কিলোমিটার পর্যন্ত পাইপলাইন বসানোর কাজ শুরু করে। কিন্তু আদালতে মামলাসংক্রান্ত জটিলতার কারণে তা বন্ধ রয়েছে।
সরেজমিনে পরিদর্শন ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শহরের বাবুরাইল, পাইকপাড়া, নয়াপাড়া, জল্লারপাড়, শীতলক্ষ্যা, তামাকপট্টি, নলুয়া, বাবুরাইল দেওভোগ, নিমতলা, সুতার পাড়া, মন্ডলপাড়া, টানবাজার, কালিরবাজার, পালপাড়া, দেওভোগ, কাশীপুর, গলাচিপা, নন্দীপাড়া, গোয়ালপাড়া, কলেজ রোড, জামতলা, ইসদাইর, মাসদাইর, গাবতলী, উত্তর চাষাঢ়া, চাঁদমারী, মিশনপাড়া, আমলাপাড়া, ডনচেম্বার, ব্যাংক কলোনি, খানপুর, তল্লা, পাঠানতলী, হাজীগঞ্জ, গোদনাইল, জালকুড়ি, সস্তাপুর, দক্ষিণ সস্তাপুর, কাঠেরপুল, কোতালেরবাগ, লাল খাঁ, সেহাচর, পাগলা, পঞ্চবটী এবং ভোলাইল এলাকায় গ্যাসের তীব্র সংকট চলছে।
ফতুল্লার পঞ্চবটী বিসিক শিল্পনগরে অবস্থিত নেভী হোসিয়ারির সহযোগী প্রতিষ্ঠান এমএস ডাইংয়ের উৎপাদন পরিচালক বাবুল হোসেন জানান, দুই মাস ধরে গ্যাসের চাপ না থাকায় ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কারখানাটি ১৯ ঘণ্টাই বন্ধ থাকছে। কারখানাটির দৈনিক উৎপাদনক্ষমতা ১৮ টন হলেও বর্তমানে তা কমে দাঁড়িয়েছে পাঁচ টনে।
পাইপলাইন বসানোর কাজ পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দি রয়েল ইউটিলাইজেশনের প্রকল্প পরিচালক আবদুস সাত্তার জানান, নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জে আগামী ৫০ বছরের গ্যাস সরবরাহ ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখার লক্ষ্যে সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে পাঠানটুলী ডিআরএস পর্যন্ত ১৬ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপ এবং সেখান থেকে পঞ্চবটী ডিআরএস পর্যন্ত ১২ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপলাইন (মোট ১৬ কিলোমিটার) বসানোর কাজ গত ২৫ নভেম্বর উদ্বোধন করেন পেট্রো বাংলার চেয়ারম্যান মো. হোসেন মনসুর। ৬৫ কোটি টাকার এই প্রকল্পের কাজ তিন মাসের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সিদ্ধিরগঞ্জের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে তিতাসের পাইপলাইনের ওপর গড়ে ওঠা একটি রি-রোলিং মিলের মালিক আদালতে মামলা করলে গত এপ্রিল থেকে কাজ বন্ধ হয়ে যায়।
তিতাস গ্যাস নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের কর্মকর্তারা জানান, নারায়ণগঞ্জে প্রতিদিন গ্যাসের চাহিদা ১২৫ মিলিয়ন ঘনফুট। সরবরাহ করা হচ্ছে ৮২ মিলিয়ন ঘনফুট। সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে ১৬ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপলাইন গোদনাইল পর্যন্ত এবং গোদনাইল থেকে ১২ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপলাইন ফতুল্লার পঞ্চবটী পর্যন্ত স্থাপন করা হলে গ্যাসের এই সমস্যা থাকবে না।
৯ জুলাই তিতাস গ্যাস অফিস ঘেরাও করবে বিএনপি: গ্যাসের তীব্র সংকট সমাধানের দাবিতে শহরের চাষাঢ়ার বালু মাঠ এলাকায় অবস্থিত তিতাস গ্যস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের কার্যালয় ঘেরাও করার ঘোষণা দিয়েছে নগর বিএনপি। গতকাল রোববার বিকেলে নগর বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম ও সাধারণ সম্পাদক এ টি এম কামাল এক যুক্ত বিবৃতিতে এ কথা জানান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন