default-image

রাজধানীর হাতিরপুলে নিজ বাসায় অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ হয়েছেন তরুণ চিকিৎসক দম্পতি রাজীব ভট্টাচার্য (৩৭) ও অনুসূয়া ভট্টাচার্য (৩২)। আজ বুধবার ভোরে তাঁদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় চিকিৎসক রাজীবের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক পার্থ শংকর পাল জানিয়েছেন, চিকিৎসক রাজীব ভট্টাচার্যের শরীরের ৮৭ শতাংশ এবং তাঁর স্ত্রী অনুসূয়া ভট্টাচার্যের ২০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। বার্ন ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন প্রথম আলোকে বলেন, আজ ভোর চারটার দিকে এই দম্পতিকে হাসপাতালে আনা হয়। রাজীবের অবস্থা বেশি খারাপ। তাঁকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

আগুন লাগার বিষয়ে সামন্ত লাল সেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘স্যানিটাইজার থেকে হয়েছে বলে শুনেছি। রাজীব এক বোতল থেকে আরেক বোতলে স্যানিটাইজার ঢালতে গেলে তা খানিকটা নিচে পড়ে যায়। এতে সিগারেট বা মশার কয়েলের আগুন থেকে তাঁর শরীরে আগুন ধরে যায়। স্ত্রী তাঁকে বাঁচাতে গেলে তিনিও দগ্ধ হন। তাঁদের সাত বছরের এক মেয়ে আছে। মেয়ে দাদার বাড়িতে থাকায় সে বেঁচে গেছে।’ এই চিকিৎসক স্যানিটাইজার ব্যবহারের ক্ষেত্রে সবাইকে সাবধান থাকার আহ্বান জানান।

রাজীব ভট্টাচার্যের চাচাতো বোন তপু ভট্টাচার্য প্রথম আলোকে বলেন, ‘শুনেছি স্যানিটাইজার থেকে নাকি আগুন ধরেছে। এখনো সঠিক বলতে পারছি না। কীভাবে কী হলো। বাসায় তাঁরা দুজন বাদে অনুসূয়ার বাবা ছিলেন অন্য রুমে। তিনি নিজেই বেশ অসুস্থ।’ চিকিৎসক দম্পতির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে বলেন, রাজীবের জন্য চিকিৎসকেরা চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এখন সৃষ্টিকর্তার ভরসায় স্বজনেরা। অনুসূয়াকে ঘুমের ওষুধ দিয়ে রাখা হয়েছে। তপু ভট্টাচার্য জানান, রাজীব ভট্টাচার্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে নিউরো সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক এবং অনুসূয়া ভট্টাচার্য রাজধানীর একটি বেসরকারি মেডিকেলের চিকিৎসক হিসেবে কাজ করছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0