default-image

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, চলমান হরতাল-অবরোধের কারণে যোগাযোগব্যবস্থায় বিঘ্ন ঘটায় সমাজের নিম্ন আয়ের মানুষ পথে বসে গেছে। এ অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে কিন্তু পুরো দেশ এখনো এ পরিস্থিতি থেকে মুক্ত হয়নি।
আজ সোমবার সচিবালয়ে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল আরবিট্রেশন সেন্টারের (বিয়াক) একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী। এরপর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ হরতাল-অবরোধে তাদের ক্ষয়ক্ষতির বিবরণ নিশ্চয়ই সরকারের কাছে তুলে ধরবে। এই ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে সরকারের দিক থেকে কোনো হিসাব আছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বিজিএমইএ “সাফার” করেনি। এটা আমার অ্যাসেসমেন্ট। কারখানাগুলোতে উৎপাদন চলছে। ’
নাগরিক সমাজের সংলাপের উদ্যোগ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে বলেন, ‘আপনি কি কিছু ফিল করেন? সংলাপের কতটুকু দরকার বলে মনে করছেন। আমি মনে করি, সংলাপের কোনো দরকার নেই।’

নাম উল্লেখ না করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত মন্তব্য করেন, একজন মহিলা একটি দেশকে জিম্মি করে রেখেছেন।

গ্রামীণ ব্যাংক প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, যে নয়জন সদস্যের মেয়াদ শেষ হয়েছে, তাঁদের বাদে বাকি চারজন দিয়েই গ্রামীণ ব্যাংকের পর্ষদ চলবে। নতুন নয়জন নির্বাচিত হবেন ভোটের মাধ্যমে।

বিয়াক প্রতিনিধিদলে বিয়াকের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, সদস্য লতিফুর রহমান, সাবেক উপদেষ্টা রোকিয়া আফজাল রহমান, আমেরিকান চেম্বারের সভাপতি আফতাবুল ইসলাম, ঢাকা চেম্বারের সভাপতি হোসেন খালেদ, মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন