কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় একটি পাকা ঘাট নির্মাণ করার ১৪ বছর পরও তা ব্যবহার করা সম্ভব হয়নি। ঘাট নির্মাণের পর এর সঙ্গে কোনো সংযোগ সড়ক নির্মাণ না করায় তা ব্যবহার করা যাচ্ছে না। দীর্ঘ সময় ঘাটটি ব্যবহারের অনুপযোগী করে ফেলে রাখায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তিতাস নদের ওপর কারারকান্দি-কালমিনা-ঘনিয়ারচর বেইলি সেতুর পাশে তেভাগিয়ায় ২০০০ সালে একটি পাকা ঘাট নির্মাণ করে আসাদপুর ইউনিয়ন পরিষদ। তৎকালীন স্থানীয় সাংসদের বিশেষ বরাদ্দ থেকে এটি নির্মাণ করা হয়। নির্মাণকাজে ব্যয় হয় এক লাখ টাকা। তেভাগিয়া গ্রামের উত্তরপাড়ার মানুষ যাতে সহজে তিতাস নদে গোসলসহ অন্যান্য কাজ করতে পারে সে উদ্দেশ্যেই ঘাটটি নির্মাণ করা হয়।
সরেজমিনে গত ২০ জানুয়ারি তেভাগিয়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, কারারকান্দি-কালমিনা-ঘনিয়ারচর বেইলি সেতুর পূর্ব-দক্ষিণ দিকে প্রায় ৩৫ ফুট দূরে পাকা ঘাটটি। সেখানে কোনো মানুষ েনই।
স্থানীয় কালাম মিয়া (৭০) বলেন, ‘ঘাট বানাইছে ১৪ বছর অইয়া গেছে। কিন্তু ঘাটের লগে রাস্তাডা বানাইতে পারে নাই কেউ।’
আসাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মাসুদ মিয়া বলেন, ‘২০০০ সালে এমপি সাহেবের টিআরের এক লাখ টাকার বরাদ্দ থেকে ঘাটটি করা হয়। কিন্তু পরবর্তী সময়ে আর কোনো বরাদ্দ না থাকায় ঘাটের রাস্তাটি করা যায়নি। আমি ব্যক্তিগতভাবে চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানিয়েছি।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহামেদ জামিল বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। আর ঘাট ব্যবহার করতে ইউনিয়ন পরিষদের বরাদ্দ দিয়েই তো একটি রাস্তা করা যায়। আমি এই বিষয়ে চেয়ারম্যানকে বলব।’

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন