নোয়াখালীতে লাকি বেগম হত্যা মামলার রায়ে তাঁর ভগ্নিপতি আলমগীর হোসেনকে (৪৫) মৃত্যুদণ্ড, ২০ হাজার টাকা জরিমানা ও তাঁর সহযোগী নিহতের মামা ফজলু মিয়াকে (৩৫) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জেলা বিশেষ দায়রা জজ আদালতের বিচারক শিরিন কবিতা আক্তার এ রায় প্রদান করেন। একই আদেশে আদালত মামলার অপর আসামি নিহত লাকির আরেক মামা জামাল উদ্দিনকে (৪৫) বেকসুর খালাস দিয়েছেন। দণ্ড ও খালাসপ্রাপ্ত আসামিদের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার বাহারহাটাই গ্রামে।
আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০০৬ সালে ৯ জুন রাতে নোয়াখালী জেলা কারাগারের সুইপার কলোনিতে লাকির বড় ভগ্নিপতির বাসার দরজা ভেঙে প্রবেশ করে ছোট ভগ্নিপতি আলমগীর হোসেন ও তাঁর কয়েক সহযোগী। তারা এ সময় লাকিকে চুরিকাঘাত করে হত্যা করে। পরদিন নিহত ব্যক্তির বড় ভগ্নিপতি মো. আলম বাদী হয়ে সুধারাম থানায় ভায়রা ভাই আলমগীর হোসেন ও লাকির দুই মামাকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত করে তিন আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।
এরপর আদালতে দীর্ঘ শুনানি ও সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে গতকাল রায় ঘোষণা করেন। আসামিদের মধ্যে মামা ফজলু ছাড়া বাকি দুজন রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। ফজলুকে গ্রেপ্তারে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
আদালতে মামলা পরিচালনা করেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি কাজি মো. শাহীন ও শহিদ উল্লা।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন