default-image

নোয়াখালীতে সুবর্ণচর উপজেলায় হত্যার দায়ে এক ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। দণ্ডিত ব্যক্তির নাম মো. মিলন ওরফে ওমর ফারুক (৩০)।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে নোয়াখালী জেলা ও দায়রা জজ সালেহ উদ্দিন আহমদ এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার পর আসামিকে নোয়াখালী জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, সুবর্ণচর উপজেলার চরমহিউদ্দিন গ্রামের মো. মিলন চট্টগ্রাম থাকতেন। বাড়িতে এলে প্রায় সময় প্রতিবেশী মো. শরীফদের বাড়িতে আসা-যাওয়া করতেন। বাড়িতে বোন থাকায় শরীফ মিলনকে তাঁদের বাড়িতে আসতে নিষেধ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হন মিলন। ২০১৭ সালের ২৮ মে বিকেলে শরীফদের বাড়িতে গিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় শরীফের ঘাড়ে কোপ দিয়ে পালিয়ে যায় মিলন। পরে পরিবারের লোকজন শরীফকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় শরীফের বড় ভাই মো. আরিফ বাদী হয়ে একই দিন চরজব্বর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এতে মিলন ওরফে ওমর ফারুককে একমাত্র আসামি করা হয়। চরজব্বর থানা-পুলিশ মামলা তদন্ত শেষে একই বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ২৪ জন সাক্ষ্য দেয়। এঁদের মধ্যে ১২ নম্বর সাক্ষী মো. নুর ইসলাম জবানবন্দি দেওয়া শেষে আসামির কাঠগড়ায় পাশে এসে বসেন। এ অবস্থায় আসামি মিলন হাতের হ্যান্ডকাপ দিয়ে সজোরে ওই সাক্ষীর মাথায় আঘাত করেন। ওই সাক্ষীকে পরে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন