বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সক্ষমতা আরও বৃদ্ধির লক্ষ্যে ভবিষ্যতে আরও অধিক উন্নত মানের জাহাজ, আধুনিক যুদ্ধ সরঞ্জাম ও প্রযুক্তি সংযোজনের পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।’

সততা, সঠিক নেতৃত্ব, আত্মত্যাগ—এই ত্রিমাত্রিক মন্ত্রে বলীয়ান হয়ে সেনা ও বিমানবাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশের প্রয়োজনে নৌবাহিনীর সদস্যদেরও সদা প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান সরকারপ্রধান।

শেখ হাসিনা বলেন, সাবমেরিন ও যুদ্ধ জাহাজকে পোতাশ্রয়ে নিরাপদ জেটি সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে কক্সবাজারের পেকুয়ায় আধুনিক বেসিনসুবিধা–সংবলিত স্থায়ী সাবমেরিন ঘাঁটি ‘বানৌজা শেখ হাসিনা’ নির্মাণের কাজ চলমান। এ ছাড়া বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে উপকূলবর্তী এলাকায় নৌবাহিনীর জাহাজের অপারেশনাল ও যোগাযোগসুবিধা বাড়ানোর জন্য ‘শের-ই-বাংলা ঘাঁটি’ নির্মাণের কাজ অনেক দূর এগিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নতুন নতুন জাহাজ, সমরাস্ত্র সংযোজনের পাশাপাশি এসব অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাংগঠনিক কাঠামো বৃদ্ধি ও সময়োপযোগী করার ক্ষেত্রেও তাঁর সরকার কাজ করছে। তার ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি নৌ প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ ঢাকার পদনাম পরিবর্তন করে ‘কমান্ডার ঢাকা নৌ অঞ্চল’ করা হয়েছে। একই সঙ্গে পদবি কমোডর থেকে রিয়ার অ্যাডমিরালে উন্নীত করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী পাসিং আউট ক্যাডেটদের মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ প্রত্যক্ষ করেন। কুচকাওয়াজ থেকে তাঁকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানানো হয়। প্রশিক্ষণ শেষে এদিন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ৪৪ প্রশিক্ষণার্থী কমিশন্ড অফিসার হিসেবে কাজে যোগদানের সুযোগ লাভ করেন।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে নৌবাহিনীপ্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল চৌকস ক্যাডেটদের অসামান্য সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ তাঁদের পুরস্কারে ভূষিত করেন। তিনি অনুষ্ঠানে ধন্যবাদও জ্ঞাপন করেন।

নবীন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁরা কর্মজীবনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বলীয়ান হয়ে দেশমাতৃকার সার্বভৌমত্ব ও নিরাপত্তা রক্ষার্থে নিরলসভাবে কাজ করে যাবেন বলে তাঁর বিশ্বাস।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তোমাদের মনে রাখতে হবে, আমরা মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জন করেছি। আমরা বিজয়ী জাতি। বিজয়ী জাতি হিসেবে আমরা বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলব।’

নৌবাহিনীর আধুনিকায়নে বর্তমান সরকারের নানা পদক্ষেপের বিস্তারিত তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, গত নভেম্বরে জার্মানি থেকে নতুন একটি এমপিএ বাংলাদেশ নৌবাহিনীর অ্যাভিয়েশন উইংয়ে যুক্ত হয়েছে। অপরটি ২০২২ সালের মে মাসে যুক্ত হবে। হেলিকপ্টার ও এমপিএ পরিচালনা-রক্ষণাবেক্ষণের জন্য আধুনিক সব সুবিধাসংবলিত দ্বিতীয় হ্যাঙ্গারের নির্মাণকাজ চলমান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড ইতিমধ্যে প্যাট্রোল ক্র্যাফট ও লার্জ প্যাট্রোল ক্র্যাফট নির্মাণের সক্ষমতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ নৌবাহিনী পরিচালিত চট্টগ্রাম ড্রাইডক লিমিটেডে আধুনিক যুদ্ধজাহাজ নির্মাণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ‘ক্রেতা নৌবাহিনী’ থেকে ‘নির্মাতা নৌবাহিনী’ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে বলে তাঁর বিশ্বাস।

স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনকালে নৌবাহিনীর সম্প্রসারণে জাতির জনকের ভূমিকা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু ১৯৭৪ সালে ‘টেরিটোরিয়াল ওয়াটারস অ্যান্ড মেরিটাইম জোনস অ্যাক্ট’ প্রণয়ন করেন, যা ছিল বাংলাদেশের সমুদ্রনীতির ভিত্তি। এরই ধারাবাহিকতায় ইতিমধ্যেই প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা সুনির্দিষ্টকরণ সম্ভব হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর থেকে তাঁর সরকার জাতির জনক প্রণীত প্রতিরক্ষানীতির আলোকে ‘ফোর্সেস গোল-২০৩০’ প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়নের মাধ্যমে সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নের প্রক্রিয়া শুরু করে।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ নৌবাহিনী আজ শুধু দেশেই নয়, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও অত্যন্ত সুশৃঙ্খল, দক্ষ ও পেশাদার বাহিনী হিসেবে মর্যাদা লাভ করেছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনসহ সব ক্ষেত্রে তাঁদের আত্মত্যাগ-কর্তব্যনিষ্ঠা বাংলাদেশের জন্য বয়ে এনেছে বিরল সম্মান ও মর্যাদা, যা বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি অত্যন্ত উজ্জ্বল করেছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন