default-image

চলতি বছর অনুষ্ঠিত হয়েছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট। এ ছাড়া বছরজুড়েই আলোচনায় ছিল ক্রীড়াঙ্গন। তারপরও ছাপা পত্রিকায় খেলার খবরে তরুণ-তরুণীদের আগ্রহ খানিকটা কমেছে। আগ্রহ বেড়েছে শিক্ষাসংক্রান্ত খবরে। ২০১৭ সাল এবং ২০১৯ সালে প্রথম আলোর তারুণ্য জরিপের তুলনামূলক বিশ্লেষণ থেকে এমনটাই জানা যাচ্ছে।

তবে ২০১৯ সালে তারুণ্য জরিপে দেখা যাচ্ছে, ছাপা পত্রিকায় খবরের মধ্যে তরুণ-তরুণীদের চলতি বছরও আগ্রহের শীর্ষে ছিল খেলার খবর। কিন্তু বিগত বছরের তুলনায় তা কিছুটা কমেছে। এদিকে যাঁরা এই খেলার খবরে আগ্রহ দেখিয়েছেন, তাঁদের সিংহভাগই পুরুষ। জরিপ বলছে, ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সীরা খেলার খবর সবচেয়ে বেশি পড়েন।

বলা যায়, খেলাধুলার পর শিক্ষাসংক্রান্ত খবরে আগ্রহ বেড়েছে বেশ। এখানে একটি বিষয় লক্ষণীয়, তরুণ-তরুণীদের মধ্যে পুরুষের তুলনায় নারীরা বেশি আগ্রহী পড়াশোনার খবরে। এ ছাড়া শহুরে তরুণ-তরুণীদের তুলনায় গ্রামের তরুণ-তরুণীরা এই খবরের ক্ষেত্রে বেশি আগ্রহী। রাজনৈতিক খবরে খানিকটা আগ্রহ কমেছে তাঁদের। তবে আগ্রহ বেড়েছে আন্তর্জাতিক খবরে।

চলতি বছরে বড় বড় প্রকল্পের দুর্নীতির খবর এসেছে। তরুণ-তরুণীদের আগ্রহও দেখা গেছে এ-সংক্রান্ত খবরে। তাঁদের আগ্রহের তালিকায় এর পরই রয়েছে পত্রিকার সম্পাদকীয়, অপরাধ, অর্থনীতি ও স্বাস্থ্যবিষয়ক খবর।

অবশ্য ছাপা খবরের কাগজের তুলনায় অনলাইন পোর্টালে তরুণ-তরুণীরা খেলার খবর বেশি পড়েন। ছাপা কাগজ ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে রাজনীতিসংক্রান্ত খবর নিয়ে আগ্রহীদের সংখ্যা প্রায় সমান। কিন্তু পড়াশোনাসংক্রান্ত খবর তাঁরা বেশি পড়েন ছাপা কাগজে।

শিক্ষাসংক্রান্ত খবরে পাঠকের আগ্রহের কারণ হিসেবে জরিপে অংশগ্রহণকারী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের অনেক তরুণ-তরুণীই শিক্ষার গুণগত মান নিয়ে উদ্বিগ্ন। ২০১৭ ও ২০১৯ সালের জরিপ বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, তরুণ-তরুণীদের মধ্যে এই উদ্বেগ কমেনি।

শিক্ষাসংক্রান্ত খবরে আগ্রহ বাড়ার আরেকটি কারণ, তরুণ-তরুণীরা গুণগত শিক্ষা পেতে দেশের বাইরে যেতে চান। ফলে চোখকান খোলা রাখার
জন্যই তাঁরা এসব খবর বেশি পড়েন। জরিপ অনুসারে ৪৫.৫ শতাংশ তরুণ-তরুণী দেশের বাইরে পড়তে যাওয়ার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছেন। তাঁরা বর্তমানে পড়াশোনা করছেন বা ভবিষ্যতে আরও পড়াশোনা করতে চান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0