অবসরে যাওয়ার সাড়ে চার মাস আগে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ মোসলেহ উদ্দিন আহমেদকে গতকাল সোমবার বদলি করা হয়েছে। তিন মাস আগে তিনি অধ্যক্ষের পদ থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন।

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব (পার-১-অধিশাখা) মইনউদ্দিন আহ্‌মদ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়।

আগামী ৩০ জুন মোসলেহ উদ্দিন আহমেদের অবসরে যাওয়ার কথা। এ সিদ্ধান্তে মেডিকেল কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। একজন শিক্ষক বলেন, চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার কিছুদিন আগে একজন অধ্যক্ষকে এভাবে বদলি করার বিষয়টি বিস্ময়কর।

 প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের রক্ত পরিসঞ্চালন বিভাগের অধ্যাপক পদে বদলি করা হয়েছে। একই সঙ্গে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অবেদনবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ মহসিন উজ্জামান চৌধুরীকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব দেওয়া হয়। মোহাম্মদ মহসিন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ও স্বাচিপ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক।

কলেজের অন্তত ১০ জন শিক্ষক ও ১৫ জন সাধারণ শিক্ষার্থী বলেন, গত বছরের ২৮ অক্টোবর কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের তিন কর্মীর বিরুদ্ধে কলেজ কর্তৃপক্ষ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা গত ১২ নভেম্বর অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেন। ১৩ নভেম্বর অধ্যক্ষ মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ পদত্যাগ করেন। ১৫ নভেম্বর উপাধ্যক্ষ কে এ মান্নানও পদত্যাগ করেন। পরে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ কুমিল্লা শাখার নেতা-কর্মীদের চাপে উপাধ্যক্ষ পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার করে নেন। তিন মাস ধরে তিনি ওই পদে বহাল থেকে কলেজের কার্যক্রম চালিয়ে যান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কলেজের তিনজন শিক্ষক বলেন, মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ ২০১০ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে অধ্যক্ষ পদে যোগদান করেন। বিগত বিএমএ নির্বাচনে সরকার-সমর্থক একটি বিশেষ মহল নির্বাচনে সুবিধা করতে না পেরে তাঁকে অপসারণের জন্য ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে। এরই ধারাবাহিকতায় তাঁকে বদলি করা হয়।

জানতে চাইলে মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘পদত্যাগের তিন মাস পর আমাকে বদলি করা হয়েছে বলে শুনেছি।’ তবে কী কারণে তাঁকে বদলি করা হলো—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

মোহাম্মদ মহসিন উজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘আমি লোকমুখে বিষয়টি জেনেছি। এর বেশি কিছু বলতে পারব না।’

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন