আজ জাতীয় সংসদে জাপার সাংসদ গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘কয়েক দিন ধরে একজন চিত্রনায়িকা ও আমাদের প্রেসিডিয়াম সদস্যকে (নাসির) নিয়ে ঘটনা দেখছি। নাসির উদ্দিনকে আমি প্রায় ৩৫ বছর ধরে চিনি, প্রায় ছাত্রাবস্থা থেকে। তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। সরকারকে খাজনা দেন। ওই ক্লাবে (বোট ক্লাব) যে নায়িকা গিয়েছিলেন, তাঁরা তো অভিনয় করতে জানেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখলাম, তাঁকে কোলে করে একটা গাড়িতে তোলা হচ্ছে। তাঁদের এই সমস্ত দিকে লক্ষ রেখে আমি সরকারের কাছে আবেদন রাখব, আইন আইনের মতো চলবে। অনতিবিলম্বে নাসিরকে যাতে এ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। আইন চলবে। তাঁকে যেন মুক্তি দেওয়া হয়।’

সাংসদ গোলাম কিবরিয়া আরও বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখলাম, ওই নায়িকা গুলশানে একটি ক্লাবে কতগুলো চেয়ার ভাঙছে, প্লেট ভাঙছে, পেপার ওয়েট ভাঙছে। ছবিতে দেখলাম, সে যত ওপরে পা তুলে একজনকে আঘাত করল, বঙ্গ ললনা নারীরা শতকরা ৯৮ জনই এটা করতে পারবে না। এই ব্যাপারটা অত্যন্ত স্পর্শকাতর। সরকারের কাছে আশা করব, যাতে ব্যাপারটা ঠিকমতো দেখে।’

দেশে টিকটক নিষিদ্ধ করার দাবি জানান জাপার এই সাংসদ। তিনি বলেন, ‘যুবসমাজ এই টিকটক দিয়ে বেহায়াপনা করছে। আমরা ঢাকার বাইরে গেলেও দেখি। কিছু বলতে পারি না। তাতে হিতে বিপরীত হতে পারে। এটা আইন করে ব্যান করা উচিত।’

পরীমনির অভিযোগ, ৮ জুন রাতে তিনি সাভারের বিরুলিয়ায় ঢাকা বোট ক্লাবে গেলে সেখানে তাঁকে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টা হয়। এ ঘটনায় গত সোমবার ছয়জনকে আসামি করে সাভার থানায় মামলা করেন পরীমনি। এরপরই পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামি নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী ওরফে অমিকে গ্রেপ্তার করে। এই দুজন বর্তমানে মাদক মামলায় রিমান্ডে আছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নাসির উদ্দিন মাহমুদ আবাসন ও নির্মাণ ব্যবসায়ী। উত্তরা ক্লাবের তিনি তিনবারের সভাপতি। তিনি ঢাকা বোট ক্লাবের সদস্য ছিলেন। এ ঘটনার পর তাঁকে কমিটি থেকে বহিষ্কার করে ঢাকা বোট ক্লাব।