জাতীয় পার্টির সাবেক সাংসদ পলাতক ইঞ্জিনিয়ার আবদুল জব্বার একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে মৃত্যুদণ্ড পাওয়ার যোগ্য মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছেন। কিন্তু বয়স বিবেচনায় তাঁকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের সাজা দেওয়া হয়েছে।
বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ আজ মঙ্গলবার এ রায় দেন। এর আগে ট্রাইব্যুনাল-১ সাতটি মামলার রায় দিয়েছেন। আর ট্রাইব্যুনাল-২ দিয়েছেন নয়টি মামলার রায়।
গত বছরের ৩ ডিসেম্বর জব্বারের বিরুদ্ধে মামলার কার্যক্রম শেষ হয়। আজ রায় ঘোষণা করা হলো।
রায়ে ট্রাইব্যুনাল বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালে আবদুল জব্বার যে অপরাধ করেছেন, তার জন্য তাঁর মৃত্যুদণ্ডের সাজা প্রাপ্য। কিন্তু বয়সের কথা বিবেচনা করে তাঁকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের সাজা দেওয়া হলো।
জব্বারের বিরুদ্ধে গঠন করা পাঁচটি অভিযোগের সবই প্রমাণিত হয়েছে। এর মধ্যে ১, ২, ৩ ও ৫ নম্বর অভিযোগে তাঁকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের সাজা দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল-১। ৪ নম্বর অভিযোগে তাঁকে ২০ বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ২ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
মুক্তিযুদ্ধকালে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার ১৯৮৬ ও ১৯৮৮ সালে জাতীয় পার্টির সাংসদ ছিলেন।
জব্বারকে পলাতক ঘোষণা করে গত বছরের ১৪ আগস্ট তাঁর বিরুদ্ধে পাঁচটি অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার বিচার শুরু হয়। তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে ২৪ জন সাক্ষ্য দেন। জব্বারের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী আবুল হাসান।
পাঁচ অভিযোগ: আবদুল জব্বারের বিরুদ্ধে গঠিত প্রথম অভিযোগ অনুসারে, একাত্তরের ১৬ মে মঠবাড়িয়া রাজাকার বাহিনীর কমান্ডার জব্বারের নির্দেশে রাজাকাররা ফুলঝুড়ি গ্রামের আবদুর রাজ্জাক বিশ্বাস ও মোতালেবের বাড়িতে হামলা চালিয়ে নির্বিচারে গুলি করে রাজ্জাককে হত্যা করে। এতে মোতালেব গুরুতর আহত হন। ওই দিন সন্ধ্যায় রাজাকাররা নাথপাড়া ও কুলুপাড়ার শতাধিক বাড়ি লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ করে।
দ্বিতীয় অভিযোগ, একাত্তরের ১৭ মে ৩০-৩৫ জন পাকিস্তানি সেনা ও ৪০-৪৫ জন সশস্ত্র রাজাকারকে নিয়ে জব্বার ফুলঝুড়ি গ্রামে হামলা চালান। জব্বারের নির্দেশে রাজাকাররা সারদা কান্তি পাইককে গুলি করে হত্যা করে। পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারা গ্রামের প্রায় ৩৬০টি ঘরবাড়ি লুট করে ও আগুন ধরিয়ে দেয়।
তৃতীয় অভিযোগ, একাত্তরের ২২ মে জব্বারের নেতৃত্বে রাজাকাররা মঠবাড়িয়ার নলীগ্রামে হামলা চালায়। জব্বার নিজের পিস্তল দিয়ে সুখনাথকে গুলি করে হত্যা করেন, তাঁর নির্দেশে সহযোগীরা ১১ জন হিন্দুধর্মাবলম্বীকে গুলি করে হত্যা করে।
চতুর্থ অভিযোগ, একাত্তরের মে মাসের শেষ সপ্তাহে ফুলঝুড়ি গ্রামের প্রায় ২০০ হিন্দুকে ধর্মান্তরিত হতে বাধ্য করেন জব্বার।
পঞ্চম অভিযোগ, একাত্তরের ৬ ও ৭ অক্টোবর জব্বারের পরিকল্পনায় ও নির্দেশে রাজাকাররা আঙ্গুলকাটা ও মঠবাড়িয়া থেকে ৩৭ জন হিন্দুধর্মাবলম্বীকে অপহরণ করে, যাঁর মধ্যে ২২ জনকে পরে হত্যা করা হয়। বাকি ১৫ জন নির্যাতনের শিকার হন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন