একই সময় একই স্থানে কিশোরগঞ্জের মহিনন্দ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ আহ্বান করায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। গতকাল শুক্রবার সকাল ছয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত মহিনন্দ ইউনিয়নের কসুয়ারচর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠসহ আশপাশের এলাকায় এ আদেশ জারি করা হয়।
ফলে কোনো পক্ষই কসুয়ারচর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জনসভা করতে পারেনি।
দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, চার মাস আগে মনসুর আলীকে সভাপতি ও শহীদুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে ৬৫ সদস্যের মহিনন্দ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য ও মহিনন্দ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান সাদেকুর রহমান ওই কমিটিকে মেনে না নিয়ে নতুন করে কমিটি গঠনের ঘোষণা দেন। কমিটি গঠনের উদ্দেশ্যে তিনি শুক্রবার বেলা ১১টায় কসুয়ারচর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সমাবেশ আহ্বান করেন। এ অবস্থায় হরতাল ও নাশকতার বিরুদ্ধে একই দিন একই সময় ওই মাঠে সমাবেশ ডাকেন মনসুর আলী।
কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম ফেরদৌস বলেন, দুই পক্ষই একই সময় একই স্থানে সমাবেশ ডাকায় শুক্রবার সকাল ছয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত কসুয়ারচর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠসহ আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা বলবৎ থাকবে।
জানতে চাইলে মনসুর আলী বলেন, ‘জামায়াত ও বিএনপির শক্তি সঙ্গে নিয়ে সাদেক আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। অপশক্তি ধ্বংস করতে আমরা বাধ্য হয়ে একই স্থানে জনসভা ডাকতে বাধ্য হয়েছি।’
অভিযোগের বিষয়ে সাদেকুর রহমান বলেন, ‘মনসুরের বাবা স্থানীয় শান্তি কমিটির সাধারণ সম্পাদক, বড় ভাই বিএনপির সভাপতি এবং তিনি নিজে জামায়াতের রুকন ছিলেন। আওয়ামী পরিবারে বিয়ে করার সূত্র ধরে মনসুর এখন আওয়ামী লীগের নেতা বনে গেছেন। এ রকম বিপরীত চেতনার লোককে নেতা মানব না বলেই নতুন করে কমিটির উদ্যোগ নিয়েছি।’ তিনি জানান, ১৪৪ ধারা জারি করায় ওই মাঠে সম্মেলন করতে না পারলেও এর ২০০ গজ পশ্চিমে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মফিজ উদ্দিনের বাড়ির কাছে সম্মেলনের মাধ্যমে মো. আলীকে সভাপতি, মনিন্দ্র চন্দ্র ও রফিকুল ইসলামকে সহসভাপতি নির্বাচন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন