বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর প্রতিবাদে আজকের সমাবেশে ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি মাসুদ রানা বলেন, দেড় বছর ধরে করোনা মহামারির কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ। এই দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকার সব থেকে ক্ষতিকর প্রভাব পড়েছে প্রাথমিক শিক্ষা স্তরে এবং ঝরে পড়ার হার এই স্তরে বেশি। করোনা পরিস্থতিতে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা মানসিকভাবে বিপর্যস্থ। তাই প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপমুক্ত পড়াশোনা এবং পাঠমূল্যায়ন করা দরকার, যেন শিশুদের ওপর মানসিক চাপ না পড়ে।

ছাত্র ফ্রন্টের সহসভাপতি জয়দীপ ভট্টাচার্য বলেন, ‘২০০৯ সালে পিইসি পরীক্ষা চালু করার পর থেকেই আমাদের সংগঠন তা বাতিলের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তোলে। এ পরীক্ষা শিশুর আনন্দময় শৈশবকে কেড়ে নিচ্ছে। আনন্দের সঙ্গে শেখার মনকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। গাইড-কোচিংনির্ভর এ পরীক্ষা শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণকে ত্বরান্বিত করছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন