বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন গ্রহণ ও বাদীপক্ষের আবেদনের বিষয় শুনানির জন্য নতুন দিন ঠিক করেছেন। প্রথম আলোকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) তাপস কুমার পাল।

পিপি তাপস কুমার পাল জানান, নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু নিবারণ আইনে কার্টুনিস্ট কিশোরের করা মামলায় সম্প্রতি পিবিআই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। আজ বুধবার ওই প্রতিবেদন গ্রহণের বিষয় শুনানির দিন ঠিক ছিল। তবে মামলার বাদী আজ আদালতে হাজির হতে পারেননি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কিশোরের আইনজীবী জায়েদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে বাদী সংক্ষুব্ধ। আর কিশোর অসুস্থ, তাই তিনি আজ আদালতে হাজির হতে পারেননি। তবে লিখিতভাবে আদালতে জানিয়েছেন, বাদী পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন জমা দেবেন।
পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের ২ মে কিশোরকে বাসা থেকে কারা ধরে নিয়ে নির্যাতন চালিয়েছিল, সে ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্যপ্রমাণ পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় জড়িত কোনো আসামিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। গ্রেপ্তারের পর কিশোরকে পুলিশি হেফাজতে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করার সাক্ষ্যপ্রমাণ নেই।

সম্প্রতি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।

পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, কে বা কারা কার্টুনিস্ট কিশোরকে কোন গাড়িতে করে, কোন রোডের, কোন স্যাঁতসেঁতে বাড়িতে রেখেছিল, সে ব্যাপারে কোনো তথ্য দিতে পারেননি বাদী। প্রকৃতপক্ষে কিশোরকে র‍্যাব তাঁর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করেছিল। কিশোরের বিরুদ্ধে মামলার বাদী র‍্যাব-৩–এর কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগে কার্টুনিস্ট কিশোরকে তাঁর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে কোনো শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়নি। মামলার চারজন তদন্ত কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তাঁরাও কিশোরকে নির্যাতনের কোনো তথ্য জানাতে পারেননি।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন