বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে গতকাল বিকেলে পুলিশ সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘আপনারা বুঝতে পারছেন তিনি (সোহেল রানা) নিয়মিত পথে ভারতে যাওয়ার চেষ্টা করেননি, অনিয়মিতভাবে চেষ্টা করেছেন। যেহেতু ভারতের সঙ্গে আসামি প্রত্যর্পণ চুক্তি রয়েছে, তাই সোহেল রানাকে আসামি হিসেবে ফেরত আনা যাবে।’

১ লাখ গ্রাহকের ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ই–অরেঞ্জের বিরুদ্ধে গত জুলাইয়ে গুলশান থানায় প্রতারণার মামলা হয়। ভুক্তভোগী ২৯ জন গ্রাহকের পক্ষ থেকে তাহেরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি ওই মামলা করেন।

ই–অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিন ও তাঁর স্বামী মাশুকুর রহমানসহ তিনজন এখন কারাগারে। এজাহারভুক্ত বীথি আক্তারসহ দুজন পালিয়ে গেছেন। মামলার বাদী বলেছেন, বীথি আক্তার পুলিশ কর্মকর্তা সোহেল রানার চতুর্থ স্ত্রী।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন