default-image

বাংলাদেশ ২০২২ সালে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) ৩৬তম এশিয়া-প্যাসিফিক আঞ্চলিক সম্মেলন আয়োজন করবে। ১৯৭৩ সালে  এফএও যোগদানের পর প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ এই সম্মান পাচ্ছে।

শুক্রবার রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। তাঁর সঙ্গে কৃষিসচিব মো. নাসিরুজ্জামান, খাদ্যসচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম ও এফএওর বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট ডি সিম্পসন উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

ব্রিফিংকালে মন্ত্রী বলেন, ৩৬তম সম্মেলন বাংলাদেশে আয়োজনের বিষয়ে চীন, ভারত, ভুটান, ইরান, তিমুর, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন ও কম্বোডিয়া সরাসরি সমর্থন দেয়। অন্য সদস্যদেশগুলো সম্মতি প্রদান করে। খাদ্য ও কৃষি সংস্থার আঞ্চলিক সম্মেলন একটি আনুষ্ঠানিক ফোরাম, যেখানে সদস্যদেশগুলোর কৃষিমন্ত্রীরা এবং অন্য জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা খাদ্য ও কৃষিক্ষেত্রের চ্যালেঞ্জ ও সমাধান নিয়ে বৈঠকে মিলিত হন।

মন্ত্রী আরও বলেন, গত ৪০ বছরে কৃষিক্ষেত্র ও খাদ্যনিরাপত্তায় বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে। বিশেষত প্রাকৃতিক দুর্যোগ, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, আবাদযোগ্য জমি হ্রাস, জলবায়ু পরিবর্তন এবং দক্ষিণাঞ্চলে লবণাক্ততার পরিমাণ বাড়ার চ্যালেঞ্জের মধ্যেও বাংলাদেশ দানাদার খাদ্যে আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ। বাংলাদেশের এই অর্জন অন্য সদস্যদেশগুলোর জন্য রোল মডেল ও উদাহরণ।

ব্রিফিংকালে মন্ত্রী জানান, করোনার কারণে ভুটান ৩৫তম এশিয়া-প্যাসিফিক আঞ্চলিক সম্মেলন চলতি ১-৪ সেপ্টেম্বর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আয়োজন করেছে। দুই বছর পরপর এই আঞ্চলিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের ৪৬টি সদস্যদেশের মধ্যে ৪১টি দেশের মন্ত্রী, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা, বেসরকারি খাত, সিভিল সোসাইটি, একাডেমিয়া এবং খাদ্য ও কৃষি খাতের টেকনিক্যাল এক্সপার্টসহ চার শতাধিক প্রতিনিধি এতে অংশ নেন।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন