অনলাইনে বরিশালের সুধী সংযোগে যুক্ত অতিথিদের একাংশ
অনলাইনে বরিশালের সুধী সংযোগে যুক্ত অতিথিদের একাংশ

শিক্ষাজীবনে অনেক শিক্ষক পাওয়া যায়। কিন্তু সবাই শিক্ষার্থীদের কাছে সমানভাবে প্রিয় নন। কিছু কিছু শিক্ষক এমনভাবে শিক্ষার্থীদের কাছে প্রিয়, যাঁদের অবদান জীবনের পরতে পরতে ছড়িয়ে থাকে। যাঁরা পাঠ্যসূচির বাইরেও মানবিক গুণাবলি, সদাচরণ, বিনয় ও ভালো মানুষ হওয়ার শিক্ষা দেন, এঁরাই আমাদের প্রিয় শিক্ষক। প্রিয় এই শিক্ষকেরা আমাদের জীবনের প্রথম নায়ক। তাঁদের প্রতিবিম্ব আমাদের জীবনকে বিকশিত করে।


‘আইপিডিসি-প্রথম আলো প্রিয় শিক্ষক সম্মাননা’ উপলক্ষে সুধী সংযোগ বরিশাল বিভাগীয় পর্বে বক্তারা এসব কথা বলেন। শুক্রবার বিকেলে অনলাইন এ পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে সুধী সংযোগ আয়োজন করা হচ্ছে।


বরিশাল বিভাগীয় সুধী সংযোগে বিভাগের বিভিন্ন স্থান থেকে শিক্ষক, শিক্ষাবিদ, সাংস্কৃতিক কর্মী, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, তরুণ উদ্যোক্তাসহ নানা শ্রেণি-পেশার ব্যক্তিরা অংশ নেন। তাঁরা নিজেদের শৈশবের প্রিয় শিক্ষকদের স্মৃতিচারণা করেন।
প্রথম আলোর বরিশালের নিজস্ব প্রতিবেদক এম জসীম উদ্দীনের  সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন প্রথম আলোর যুব কার্যক্রম ও ইভেন্টস বিভাগের প্রধান মুনির হাসান। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন আউপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার ফাহমিদা খান।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে বরিশাল বিএম কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ও সচেতন নাগরিক কমিটি বরিশাল জেলার সভাপতি শাহ সাজেদা বলেন, ‘একজন শিক্ষক আজীবনই শ্রদ্ধার ব্যক্তি হিসেবে বেঁচে থাকেন তাঁর কর্মের মধ্য দিয়ে। কিন্তু সব শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মনের মধ্যে গেঁথে থাকেন না। থাকেন তাঁরাই, যাঁরা পাঠ্যক্রমের বাইরে গিয়ে জীবনবোধ, নৈতিকতা, ভালো মানুষ হওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের তাগিদ দেন এবং নিঃস্বার্থভাবে লেগে থাকেন। শিক্ষার্থীদের কাছে হয়ে ওঠেন তাঁরা দার্শনিক, শিক্ষাগুরু, আদর্শের বাতিঘর। আমাদের সমাজে এখন ছোট, বড় পর্দায় অনেক মডেল রয়েছে কিন্তু শিক্ষাক্ষেত্রে, জীবন গড়ার ক্ষেত্রে মডেলের অভাব রয়েছে। কারণ, মডেল হতে হলে শিক্ষককে আদর্শবান হতে হয়। কিন্তু কেন যেন আমরা এখন জীবনবোধ থেকে ছিটকে পড়ছি।’

default-image


অনলাইনে যুক্ত হয়ে সুধী সংযোগে আরও বক্তব্য দেন সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) বরিশাল নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল আলম, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর সুব্রত কুমার দাস, সচেতন নাগরিক কমিটি ঝালকাঠি জেলা শাখার সভাপতি হেমায়েত উদ্দীন, বরিশালের বেসরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রকৌশলী আমির হোসেন, পাথরঘাটা সৈয়দ ফজলুল হক ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ জিয়াউল করিম, পিরোজপুরের প্রবীণ শিক্ষানুরাগী আবদুল লতিফ, ঝালকাঠি সরকারি কলেজের শিক্ষক মো. শামীম আহসান, বরগুনার তরুণ উদ্যোক্তা রকিবুল ইসলাম, রাজাপুর সরকারি কলেজের শিক্ষক কামরুন্নেছা আজাদ, পটুয়াখালীর ঝাটিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এমডি নাসির উদ্দীন, ভোলার বোরহানউদ্দীন থেকে শিক্ষক মোবাশ্বের হোসেন, বরগুনা প্রেসক্লাবের সভাপতি সঞ্জিব দাস প্রমুখ।

পিরোজপুরের শিক্ষানুরাগী আবদুল লতিফ বলেন, ‘শিক্ষকতা পেশায় স্বাচ্ছন্দ্য নেই এটা ঠিক। এখন যা–ও আছে আগে তা–ও ছিল না। কিন্তু আগেকার শিক্ষকদের মধ্যে মানবিক গুণ, নৈতিকতা, জ্ঞান বিতরণের দৃঢ় অঙ্গীকার দৃষ্টিভঙ্গির মধ্য দিয়ে গড়ে উঠত। তাঁরা পাঠ্যক্রমের বাইরে একজন ছাত্রকে কীভাবে ভালো মানুষ হতে হয়, তার শিক্ষা দিতেন। এই যে একজন শিক্ষকের ভেতরকার তাগিদবোধ এটা কোনো চাওয়া-পাওয়ার আশায় তাঁরা করতেন না। কিন্তু এখন সেই তাগিদবোধটা কেন জানি শিক্ষকদের মধ্যে কমতি দেখছি। এটা আমাদের হতাশ করে। প্রথম আলো-আইপিডিসি শিক্ষকদের যে সম্মাননার আয়োজন করেছে, এর মধ্য দিয়ে আশা করি আমাদের শিক্ষকদের সেই তাগিদবোধের উন্মেষ ঘটাবে। আমাদের শিক্ষাক্ষেত্রে মেধাবীদের অংশগ্রহণ বাড়বে। সেই সঙ্গে প্রিয় শিক্ষকের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করি।’
অধ্যক্ষ জিয়াউল করিম বলেন, ‘আমার বাবাও একজন শিক্ষক ছিলেন। খেতে-বসতে ধরে ধরে আমাদের তিনি ইংরেজি গ্রামার শিখিয়েছেন। তেমনি অন্য শিক্ষার্থীদেরও শিখিয়েছেন। আমার বাবার এই সত্তা আমার ভেতরে এখনো জীবিত। তাঁর এই অঙ্গীকারের জায়গা থেকেই আমি শিক্ষক হয়েছি।’


আয়োজকেরা জানান, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষককে দেওয়া হবে এ সম্মাননা। একজন মনোনয়নকারী সর্বোচ্চ তিনজন শিক্ষককে মনোনীত করতে পারবেন। মনোনয়নকারীর বয়স হতে হবে কমপক্ষে ১৮ বছর। অনলাইনে নির্দিষ্ট ফরমে আবেদন করা যাবে (www.priyoshikkhok.com) এ ওয়েব ঠিকানায়। বরিশাল বিভাগের সুধী সংযোগ আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন বরিশাল বন্ধুসভার সদস্যরা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0