default-image

মাত্র ৫৫ বছর বয়সেই চলে গেলেন জ্যেষ্ঠ ফটোসাংবাদিক মীর মহিউদ্দিন সোহান। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাই রাজিউন)। দীর্ঘদিন ধরে তিনি যকৃতের রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি রেখে গেছেন স্ত্রী ও এক কন্যা।
প্রায় তিন দশক ধরে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় কর্মরত ছিলেন মীর মহিউদ্দিন সোহান। সবার কাছে তিনি পরিচিত ছিলেন সোহান ভাই নামে। হাসিখুশি এ মানুষটি বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনে রবীন্দ্রসংগীতের তালিকাভুক্ত শিল্পী ছিলেন। জাতীয় প্রেসক্লাবে শিশুশিক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে শিশুদের গান শেখাতেন। নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে তোলা আলোকচিত্রের জন্য সমাদৃত হন মীর মহিউদ্দিন সোহান।
মীর মহিউদ্দিন সোহান জাতীয় প্রেসক্লাব ও বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের জ্যেষ্ঠ সদস্য ছিলেন। গতকাল দুপুর ১২টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে মীর মহিউদ্দিন সোহানের প্রথম জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজা শেষে বিভিন্ন সংগঠন মহিউদ্দিন সোহানকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়। পরে তাঁর সহকর্মী, অনুজ ফটোসাংবাদিকেরা শেষবারের মতো কফিনের সামনে ক্যামেরা রেখে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। পরে মীর মহিউদ্দিন সোহানকে গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দ্বিতীয় জানাজার পর তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
শোক: মীর মহিউদ্দিন সোহানের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শোক জানিয়েছে জাতীয় প্রেসক্লাব, বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট ফোরাম।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন