default-image

ফরিদপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় সাত পুলিশ সদস্যসহ নতুন করে আরও ৪৭ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে ফরিদপুর জেলায় করোনাভাইরাস শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪৭৯ জন। তবে নতুন করে শনাক্ত হওয়া এক ব্যক্তি ইতিমধ্যে মারা গেছেন।


গতকাল শনিবার রাতে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের করোনা শনাক্তকরণ ল্যাব সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।


ফরিদপুরে নতুন করে যে ৪৭ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তাদের মধ্যে ভাঙ্গা উপজেলায় ২৯ জন, বোয়ালমারীতে ৪ জন, আলফাডাঙ্গায় ৪ জন, সদরপুরে ৪ জন, সালথায় ৩ জন, ফরিদপুর সদরে ৪ জন, চরভদ্রাসনে একজন ও নগরকান্দায় একজন। আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ জন নারী ও ৩২ জন পুরুষ। তবে এ তালিকার অন্তর্ভুক্ত ভাঙ্গার এক ব্যক্তি (৬৩) ইতিমধ্যে মারা গেছেন।


ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মোহসীন উদ্দিন ফকির বলেন, ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে মৃত্যুর পর ওই ব্যক্তির শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। ওই ব্যক্তিকে নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা নয়জন।


গতকাল ফরিদপুরে নতুন করে যে ৪৭ জনের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে, তাদের মধ্যে সাতজন পুলিশ সদস্য আছেন। তাদের মধ্যে একজন উপপরিদর্শক।


ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বলেন, ভাঙ্গা, বোয়ালমারী, সদরপুর, আলফাডাঙ্গা, সালথা, ফরিদপুর সদর, চরভদ্রাসন ও নগরকান্দায় গত ২৪ ঘণ্টায় যাদের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে তাদের প্রত্যেকের বাড়ি বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।


ফরিদপুরের সিভিল সার্জন মো. ছিদ্দীকুর রহমান বলেন, নতুন কোভিড–১৯ রোগীদের আপাতত বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হবে। তবে শারীরিক পরিস্থিতির অবনতি হলে তাদের ফরিদপুরের হাসপাতালে স্থানান্তর করা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন