ছয় দিনেও খোঁজ মেলেনি অপহূত স্বর্ণ ব্যবসায়ী মৃদুল চৌধুরীর। তিনি জীবিত না মৃত, কিছুই বলতে পারছে না র‌্যাব-পুলিশ। তাঁকে উদ্ধারে এ কয়েক দিনে কোনো দৃশ্যমান অভিযানও নেই। এ অবস্থায় ফুঁসে উঠছে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী সমাজ।
এদিকে মৃদুল চৌধুরীকে উদ্ধারের দাবিতে কাল মঙ্গলবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চট্টগ্রাম নগরের সব স্বর্ণের দোকান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে জুয়েলারি ব্যবসায়ী সমিতি। গতকাল রোববার বিকেলে সমিতির সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। এ অপহরণ ঘটনার প্রতিবাদে পূজা উদ্যাপন পরিষদ বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে অনশন করবে বলেও ঘোষণা করা হয়।
কাল ব্যবসায়ীদের সমাবেশ থেকে এ ঘটনায় অভিযুক্ত র‌্যাব কর্মকর্তা মেজর রকিবুল আমিনকে গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয়। মৃদুল চৌধুরীকে উদ্ধার করা না গেলে বৃহত্তর আন্দোলন করা হবে বলে ব্যবসায়ীরা হুঁশিয়ারি দেন।
১১ ফেব্রুয়ারি সকালে চট্টগ্রাম শহরের পুরাতন টেলিগ্রাফ রোডের বাসা থেকে অপহূত হন মৃদুল চৌধুরী। পরিবারের পক্ষ থেকে কোতোয়ালি থানায় অপহরণ মামলা হয়। এর আগে মৃদুল চৌধুরী বাদী হয়ে ঢাকার সিএমএম আদালতে র‌্যাবের রকিবুল আমিনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ৮০ ভরি স্বর্ণ লুটের মামলা করেন। মামলার পরই অপহূত হন তিনি।
ব্যবসায়ীদের সমাবেশ হয় হাজারী লেন শিবমন্দির প্রাঙ্গণে। হাজারী লেন স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী এ সমাবেশের আয়োজন করেন। সমাবেশ জুয়েলার্স সমিতি, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ, জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা বক্তব্য দেন।
জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চন্দন তালুকদার সমাবেশে বলেন, ‘মামলা করার কারণে র‌্যাব মৃদুল চৌধুরীকে তুলে নিয়ে গেছে। অবিলম্বে র‌্যাবের মেজর রকিবুল আমিনকে গ্রেপ্তার করে অপহরণ-রহস্যের জট খুলতে হবে। নইলে একাত্তর সালের মতো সংখ্যালঘুরা দেশ ছাড়তে বাধ্য হবে।
মৃদুলের ভাই শিমুল চৌধুরী বলেন, ‘দেশটা তো মনে হয় র‌্যাব বাহিনী চালাচ্ছে। মামলা করার কারণে আমার ভাইকে র‌্যাব তুলে নিয়ে গেছে। সরকারের কাছে একটাই আবেদন, আমি আমার ভাইকে জীবিত ফেরত চাই।’
প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন নিতাই প্রসাদ ঘোষ, শ্যামল পালিত, সুজিত ধর, সাধন ধর, স্বপন চৌধুরী, জুহুল লাল হাজারী, প্রদীপ গুহ, মোস্তাফিজুর রহমান, শিমুল চৌধুরী প্রমুখ।
জুয়েলার্স সমিতি, চট্টগ্রামের সভাপতি নুরুল আবছার বলেন, প্রশাসনকে ৭২ ঘণ্টা সময় দেওয়া হলেও মৃদুল চৌধুরীকে উদ্ধার করতে পারেনি তারা। প্রতিবাদে মঙ্গলবার নগরের সব স্বর্ণের দোকান বন্ধ রাখবেন ব্যবসায়ীরা। এরপর কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হবে।
জানতে চাইলে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার বনজ কুমার মজুমদার বলেন, এখনো অপহূত মৃদুল চৌধুরীর সন্ধান মেলেনি।
র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের পরিচালক লে. কর্নেল মিফতা উদ্দিন আহমেদ বলেন, তদন্ত অব্যাহত আছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন