মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া ফেরিঘাটে স্পিডবোট ছেড়ে যাওয়ার সিরিয়াল নিয়ে গতকাল শুক্রবার সংঘর্ষে পুলিশসহ ছয়জন আহত হয়েছেন। এ সময় পিস্তল, গুলি, মোটরসাইকেলসহ দুই তরুণ গ্রেপ্তার হন।
গ্রেপ্তার হওয়া তরুণেরা হলেন মো. রকি (২১) ও আবদুল আহাদ (১৮)।
পুলিশ সূত্র জানায়, গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের শিমুলিয়া ফেরিঘাটে স্পিডবোটের সিরিয়াল নিয়ে স্পিডবোটের মালিক আলী ও আবুল কালাম পক্ষের মধ্যে কথা-কাটাকাটি ও পরে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের সময় মোটরসাইকেলে মহড়া দিতে থাকা রকি ও আবদুল আহাদকে একটি পিস্তল, পাঁচটি গুলিসহ গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় তাঁদের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে নৌ-ফাঁড়ির এসআই ইউনুস আলী সামান্য আহত হন। খবর পেয়ে লৌহজং থানার পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহত এসআই ইউনুস আলী ও স্পিডবোটের মালিক আবুল কালামকে (৩৫) স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বাকিরা অন্যত্র চিকিৎসা নিয়েছেন।
লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হক জানান, এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন