পদোন্নতির জন্য ঘুষের তহবিল গঠনের ঘটনায় বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটির প্রধানের পদ থেকে উপকমিশনার শোয়েব আহমদকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তথ্য গোপনের অভিযোগে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তাঁর স্থলে উপকমিশনার (ট্রাফিক) আবু সালেহ মো. রায়হানকে ওই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
গত শুক্রবার রাতে পুলিশ কমিশনার শৈবাল কান্তি চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, তিন সদস্যের কমিটিতে সদস্য আরও দুজন বাড়ানো হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন সহকারী কমিশনার শাহানাজ পারভীন, আসাদুজ্জামান, রুনা লায়লা ও অপু সরোয়ার।
শৈবাল কান্তি চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, পুলিশের ঘুষ কেলেঙ্কারির ঘটনা দুই মাস আগেই উপকমিশনার (সদর) শোয়েব আহমদ জানতেন। একজন উপকমিশনার তাঁকে অবহিত করলেও তিনি এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেননি এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাননি। সে কারণে তদন্ত কমিটির প্রধানের পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।
পদোন্নতি পেতে স্বরাষ্ট্র, জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয়ে তদবির করে ঘুষ দেওয়ার জন্য ১০ জেলায় পুলিশ সদস্যরা গোপনে তহবিল সংগ্রহ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। পুলিশের সূত্রের মতে, ঘুষের টাকা লেনদেনের জন্য বরিশাল মহানগর পুলিশ (বিএমপি) রীতিমতো ব্যাংক হিসাবও খোলে। এসব তথ্য যাচাই করতে চার জেলার পুলিশ সদস্যদের ঢাকায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন পুলিশের ডিসিপ্লিন অ্যান্ড প্রফেশনাল স্ট্যান্ডার্ড (ডিপিএস) শাখার কর্মকর্তারা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0