default-image

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাটে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় পৃথক দুই মামলায় ৭২ জনকে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগাম জামিন চেয়ে করা পৃথক আটটি আবেদনের শুনানি নিয়ে আজ সোমবার বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ তাঁদের চার সপ্তাহের আগাম জামিন দেন।

পৃথক মামলায় ৭২ নেতা-কর্মী আজ আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে আগাম জামিনের আবেদন জানান। তাঁদের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী ফরহাদ আহমেদ ও এস এস আরেফিন জুন্নুন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মিজানুর রহমান।

বিজ্ঞাপন

আইনজীবীর দেওয়া তথ্যমতে, জামিনপ্রাপ্ত ৭২ জন বসুরহাটের মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের চরফকিরা ইউনিয়নের চাপরাশিরহাট বাজারে আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ওই দিন বিকেল সাড়ে চারটা থেকে সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত দুই দফা সংঘর্ষে সাতজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ২০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। সংঘর্ষে বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির (২৫) নামের এক সাংবাদিক গুলিবিদ্ধ হন। পরে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

সংঘর্ষের পর ওই দিনই কোম্পানীগঞ্জের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল মামলা করেন। এরপর ২২ ফেব্রুয়ারি পুলিশ বাদী হয়ে আরও একটি মামলা করে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন