বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইডিসিএফ হচ্ছে উন্নয়নশীল দেশগুলোর আর্থসামাজিক উন্নয়নে সহায়তার জন্য দক্ষিণ কোরিয়ার একটি উন্নয়ন অর্থায়ন কর্মসূচি। ঢাকায় দক্ষিণ কোরিয়া দূতাবাসের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ওই ঋণসহায়তার বিষয়ে মঙ্গলবার অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) অতিরিক্ত সচিব মো. শাহরিয়ার কাদের সিদ্দিকী ও কোরিয়ার এক্সপোর্ট-ইমপোর্ট ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক কিম তে সু একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। কোরিয়া এক্সিম ব্যাংক থেকে এই মাসের মধ্যেই অর্থ ছাড় করা হবে। ঋণের সুদের হার বার্ষিক শূন্য দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ এবং ১৫ বছরের ‘গ্রেস পিরিয়ড’সহ ম্যাচুরিটি সময়কাল ৪০ বছর।

কোরিয়া প্রজাতন্ত্র ইতিমধ্যে করোনা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রচেষ্টাকে সহায়তা করতে ২০২০ সালের বাজেট সহায়তা হিসেবে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ইডিসিএফ ঋণ দিয়েছিল। চুক্তি অনুসারে, দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার বাংলাদেশ সরকারকে পাঁচ বছর মেয়াদে ছাড়কৃত ঋণ হিসেবে ৭০ কোটি ডলার দেবে।

১০ কোটি ডলারের নতুন ছাড়যুক্ত ঋণ ব্যবহার করা হবে বেশ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য। মূলত পাবলিক ফাইন্যান্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের অগ্রগতি এবং মহামারির পর ছোট ও মাঝারি আকারের ব্যবসার উন্নতির লক্ষ্যে এই ঋণ।

বাংলাদেশ বিশ্বে ইডিসিএফ ঋণের দ্বিতীয় বৃহত্তম গ্রহীতা। এ পর্যন্ত দক্ষিণ কোরিয়া ইডিসিএফের মাধ্যমে বাংলাদেশের ২৪টি উন্নয়ন প্রকল্পে মোট ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার অর্থায়ন করেছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন