বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ব্যবসায়ীদের দাবি অনুযায়ী বাজারে অভিযান বন্ধ হবে কি না, এমন প্রশ্ন করা হয়েছিল বাণিজ্যমন্ত্রীকে। জবাবে অভিযান বন্ধ হবে না বলে জানান তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে তেলের দাম ঠিক করা হয়েছে আন্তর্জাতিক দামের সঙ্গে মিল রেখে। একটি সিস্টেমে এটি করা হয়। ৫ মে দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়। এরপর ৬ ও ৭ মে ছুটি ছিল। এ ছাড়া কিছু অসাধু ব্যবসায়ী আগের দামের তেল লুকিয়ে রেখেছিলেন। সেটি তাঁরা বের করছিলেন না। তবে তিনি মনে করেন, দু-তিন দিনের মধ্যে স্বাভাবিক (বাজারে জোগান) হয়ে যাবে।

সরকারিভাবে তেল আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ জন্য প্রয়োজনীয় কাজ করছেন। হয়তো জুন মাসের মধ্যে টিসিবির মাধ্যমে আমদানি করতে পারবেন।

সয়াবিনের আমদানি পর্যায়ে শুল্ক প্রত্যাহার নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে টিপু মুনশি বলেন, ‘ট্যাক্স প্রত্যাহারের দপ্তর হলো জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। আমরা চিঠি দিতে পারি। চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ১০ শতাংশ ট্যাক্স প্রত্যাহার করা হয়েছে। এখনো ৫ শতাংশ আছে। আমরা চাই সেটাও প্রত্যাহার করা হোক। এ জন্য চিঠি দেওয়া হবে।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন