পর্যটকশূন্য বান্দরবান জেলা শহরতলির মেঘলা পর্যটনকেন্দ্রের ঝুলন্ত সেতু। সম্প্রতি তোলা।
পর্যটকশূন্য বান্দরবান জেলা শহরতলির মেঘলা পর্যটনকেন্দ্রের ঝুলন্ত সেতু। সম্প্রতি তোলা।ছবি: প্রথম আলো

বান্দরবানের পর্যটন কেন্দ্র এবং আবাসিক হোটেল-মোটেলগুলো এখনই খুলে দেওয়া হচ্ছে না। ঈদুল আজহার পরও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ না কমায় এগুলো খোলা যাচ্ছে না। সপ্তাহখানেক পরে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি সভা ডেকে পর্যালোচনা করার পর বিষয়টি নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। আজ রোববার জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্র জানায়, জেলা প্রশাসন থেকে ঈদের আগে বলা হয়েছিল ঈদ ও জাতীয় শোক দিবসের পরে ১৭ আগস্ট থেকে পর্যটনকেন্দ্র ও আবাসিক হোটেল-মোটেল খুলে দেওয়া হবে। করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে মার্চের মাঝামাঝি থেকে প্রায় পাঁচ মাস ধরে পর্যটনকেন্দ্র ও পর্যটন ব্যবসা বন্ধ রয়েছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কয়েকজন কর্মকর্তা বলেন, কোরবানি ঈদে লোকজনের চলাচল বেড়ে গিয়েছিল। এ জন্য করোনা সংক্রমণ উঠা-নামা করছে। তবে প্রতিদিনই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে পারে। এ জন্য এখন পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল-মোটেল চালু করার বিষয়ে করোনা প্রতিরোধ কমিটি সিদ্ধান্ত নিলে ভালো হবে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক ক্যথোয়াইপ্রু প্রিন্স বলেন, জেলায় শনিবার পর্যন্ত করোনার শনাক্তের সংখ্যা ৬২১। এর মধ্যে সুস্থ্ হয়েছেন ৪৬৪ জন। জেলা শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ৪২৯। জেলায় কম আক্রান্তের সংখ্যা থানচিতে ১২ ও রুমায় ১৬ জন। সেখানে বর্তমানে কোনো কোভিড-১৯ রোগী নেই।

বিজ্ঞাপন
কাল সোমবার থেকে পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল-মোটেল খুলে দেওয়া হবে জেনে তাঁরা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন। কিন্তু পরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে এগুলো খোলা যাবে না। তবে প্রশাসনের আদেশ পেলে যেকোনো সময় চালু করার প্রস্তুতি তাঁদের রয়েছে।
অমল কান্তি দাশ, সভাপতি, বান্দরবান জেলা হোটেল–মোটেল মালিক সমিতি

পর্যটন কেন্দ্র এবং হোটেল-মোটেল চালু করার বিষয়ে জেলা প্রশাসক দাউদুল ইসলাম জানালেন, এগুলো খুলে দেওয়ার বিষয়ে ঈদের আগে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো ঘোষণা দেওয়া হয়নি। এখন দেখা যাচ্ছে করোনার সংক্রমন এখনো রয়ে গেছে। এ জন্য জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্ত ছাড়া কেউ এককভাবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না। সপ্তাহ খানেকের মধ্যে করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে করোনা কমিটির সভা ডাকা হবে। সেখানেই সবার মতামত নিয়ে পর্যটন কেন্দ্র ও হোটেল-মোটেল খুলে দেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন