অমল সেনের জন্মশতবর্ষের আলোচনা

বামধারার দলগুলোকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান

বিজ্ঞাপন
default-image

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের জনবিচ্ছিন্ন বামধারার রাজনৈতিক দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে একটি আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, এর মধ্য দিয়েই আবার দলগুলোর জনমুখী রাজনৈতিক ধারা প্রতিষ্ঠা করতে হবে।
বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি গতকাল শনিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সেমিনার হলে উপমহাদেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা, তেভাগা আন্দোলনের নেতা এবং পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অমল সেনের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে এই আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
আলোচনায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম মনে করেন, বাম আন্দোলনের গুণগত পরিবর্তনের জন্যই ঐক্য জরুরি। এ জন্য দলগুলোর মধ্যকার সামান্য মতপার্থক্য মনে না রেখে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারায় বাংলাদেশকে ফিরিয়ে আনতে কমিউনিস্ট ঐক্যের ডাক দিয়ে তিনি বলেন, ‘তেভাগা আন্দোলনের সময় মণি সিং এবং অমল সেন একই পার্টির নেতা ছিলেন। সেই পার্টিকে কি আমরা ফিরিয়ে আনতে পারি না?’
মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম আরও বলেন, ‘এর মধ্য দিয়ে আমরা যেমন মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীদের চ্যালেঞ্জ করতে পারব, তেমনি চ্যালেঞ্জ করতে পারব বুর্জোয়া রাজনৈতিক লুটেরাদের।’
ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এই বক্তব্যকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, ‘যদিও আমরা ১৪ দলে আছি, কিন্তু আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় থাকবে, এটাও বলতে পারি না। তাহলে পঞ্চদশ সংশোধনীতে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল থাকত না।’
প্রতিক্রিয়াশীল শক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কমিউনিস্ট ও বামপন্থীদের ঐক্যের অপরিহার্যতা প্রসঙ্গে ফজলে হোসেন বাদশা আরও বলেন, ‘আমরা যদি এ সংগ্রামের ধারায় ঐক্যবদ্ধ হই, তাহলে মানুষ একটা দিশা খুঁজে পাবে। আমাদের ওপরও তাদের আস্থা ফিরতে শুরু করবে।’
বাদশার মতোই ‘দলে-উপদলে-গোষ্ঠীতে’ বিভক্ত বামদলগুলোকে জনবিচ্ছিন্নতা থেকে জনসম্পৃক্ততার জায়গায় নিয়ে যাওয়ার জন্য ঐক্যের বিকল্প দেখছেন না সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী। একই সঙ্গে রাজনীতির পাশাপাশি সাংস্কৃতিক আন্দোলনকে জোরদার করার জন্য অমল সেনের পরামর্শও মনে করিয়ে দেন তিনি।
এ বিষয়ে ঐক্য ন্যাপের সভাপতি পঙ্কজ ভট্টাচার্যের বক্তব্যও একই রকম। সংকট উত্তরণে অমল সেনের জীবন থেকে শিক্ষা নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।
আলোচনা অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদবিরোধী মঞ্চের আহ্বায়ক অজয় রায়, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, প্রবীণ সাংবাদিক শুভ রহমান।
এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে ‘জনগণের বিকল্প শক্তি গড়ে তোলার সংগ্রাম ও কমরেড অমল সেন’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন।
১৯১৪ সালের এই দিনে বর্তমানের নড়াইল জেলার আফরা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন অমল সেন। ১৯৩৩ সালে খুলনার বিএল কলেজে পড়ার সময় তিনি অবিভক্ত কমিউনিস্ট পার্টির সঙ্গে যুক্ত হন এবং এই অঞ্চলের জমিদারদের বিরুদ্ধে কৃষক আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। সে সময় তাঁর বাবার জমিদারির বিরুদ্ধে আন্দোলন তাঁকে আরও বেশি পরিচিত করে তোলে। আর ১৯৪৬-এর তেভাগা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার মধ্য দিয়ে তিনি কিংবদন্তিতে পরিণত হন।
নড়াইলে জন্মশতবার্ষিকী পালিত: প্রথম আলোর নড়াইল প্রতিনিধি জানিয়েছেন, নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে নড়াইল জেলা ওয়ার্কার্স পার্টি কমরেড অমল সেনের জন্মশতবার্ষিকী পালন করেছে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল সকাল ১০টায় শহরের মুচিপোল চত্বর থেকে লাল পতাকা মিছিল, সদর উপজেলার আউড়িয়া গ্রামে অমল সেন মঞ্চে প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও আলোচনা সভা।
ওয়ার্কার্স পার্টির নড়াইল জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম আগামী বছরের ১৮ জুলাই পর্যন্ত বছরব্যাপী নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে কমরেড অমল সেনের জন্মশতবার্ষিকী পালনের ঘোষণা দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন