default-image

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘জঙ্গিকে আমরা আজকে দমন করতে সক্ষম হয়েছি। কিন্তু বাংলাদেশে বিএনপি যদি জঙ্গিদের এভাবে পৃষ্ঠপোষকতা না দিত বা জঙ্গিগোষ্ঠী সাথে নিয়ে রাজনীতি না করত, তাহলে পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব হতো।’

সচিবালয়ে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মোহাম্মাদ আমিনুল ইসলাম আমিন সংকলিত ‘সন্ত্রাস নয় সম্প্রীতির ধর্ম ইসলাম’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে এ দেশের সংস্কৃতি-ঐতিহ্যের ওপর আঘাত হানার অপচেষ্টার বিরুদ্ধে ইসলামি চিন্তাবিদসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তৃতায় হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে কিশোর-তরুণদের বিপথগামী করা হয়, ইসলামকে ক্ষমতায় যাওয়ার সোপান হিসেবে ব্যবহার করা হয়। একইভাবে ভাস্কর্যের বিরুদ্ধাচারণ, আবহমান বাংলার নানা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ওপর আঘাত হানা, পয়লা বৈশাখ উদ্‌যাপন নিয়ে প্রশ্ন তোলা—এগুলো যে ঠিক নয়, সেটি জনগণের কাছে পৌঁছানো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ইসলাম রক্ষা এবং ইসলামের ওপর কালিমা লেপনকারী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সবাইকে নিয়ে ইসলামি চিন্তাবিদদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অনুরোধ জানাই।’

বিজ্ঞাপন

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশে কিছু রাজনৈতিক শক্তি এবং একই সঙ্গে কিছু উগ্রবাদী ধর্মীয় গোষ্ঠী ইসলামকে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালায়।’ তিনি আরও বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর জিয়াউর রহমানসহ যারা ক্ষমতা দখল করেছিল, তারা ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করা ও ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য ইসলামকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেছে। সেই ধারাবাহিকতায় হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সাহেবও ইসলামকে ব্যবহার করে সংবিধানকে কাটাছেঁড়া করেছেন, অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করেছেন। পৃথিবীর অন্যান্য দেশেও এমন হয়েছে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, জঙ্গি দমনের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যে সক্ষমতা দেখিয়েছে, অন্য কোনো রাষ্ট্র তা দেখাতে পারেনি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ, বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামি পার্টির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন