বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রুলে দুদকের পদক্ষেপ গ্রহণে নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়। এর ধারাবাহিকতায় সম্পূরক আবেদনটি করে এইচআরপিবি।
আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ফৌজিয়া আখতার। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক।

পরে মনজিল মোরসেদ প্রথম আলোকে বলেন, রিটের ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি হাইকোর্ট নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে দুদক কী পদক্ষেপ নিয়েছে, তা জানতে চান। পরে হলফনামা আকারে দুদক জানায়, অনুসন্ধানে কিছু না পাওয়ায় ১৭ সিবিএ নেতাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। আদালত পুরো নথি তলব করেন। নথিতে দেখা যায়, ১৭ সিবিএ নেতার সম্পদের বিষয়ে ব্যাংক, বিমা, রেজিস্ট্রি অফিসসহ অন্যান্য উৎসে অনুসন্ধান হয়নি। তখন যথাযথ অনুসন্ধানের নির্দেশনা চেয়ে সম্পূরক আবেদনটি করা হলে আদালত ওই রুল দেন। দুদকসহ বিবাদীদের চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আইনজীবীর তথ্যমতে, বিমানের সিবিএ নেতারা হলেন মো. মসিকুর রহমান, আজাহারুল ইমাম মজুমদার, আনোয়ার হোসেন, মো. ইউনুস খান, মো. মনতাসার রহমান, মো. রুবেল চৌধুরী, মো. রফিকুল আলম, মো. আতিকুর রহমান, মো. হারুনর রশিদ, আবদুল বারী, মো. ফিরোজুল ইসলাম, মো. আবদুস সোবহান, গোলাম কায়সার আহমেদ, মো. আবদুল জব্বার, মো.আবুল কালাম, আসমা খানম ও মো. আবদুল আজিজ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন