বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সুখবর হচ্ছে, তারা বিমানকে (রোববার নিউইয়র্কের জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমানের ফ্লাইট) অবতরণের অনুমতি দিয়েছে। সুতরাং আমি আশা করি, বিমান ভবিষ্যতে ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে এর কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে।’

এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেশন এভিয়েশন অথরিটির সঙ্গে বাংলাদেশের একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এটিও আশাবাদী হওয়ার কারণ। ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে বিমান চলাচল কয়েক বছর ধরে স্থগিত রয়েছে বলে তিনি জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিমানবহরে বেশ কয়েকটি আধুনিক ও সর্বশেষ মডেলের উন্নত বিমান যুক্ত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী দলের সদস্যরা কোনো ধরনের ঝামেলার সম্মুখীন না হয়ে এবং যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে সরাসরি গাড়িতে বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনার কারণে আমাদের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হয়েছে। বিমানের এই রুট চালু হলে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসী বাংলাদেশিরা খুব খুশি হবেন।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন