বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘কয়েক দশক ধরে আমাদের দেশের উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সদয় সমর্থনকে আমরা বিনীতভাবে স্বীকার করি। আমরা এখন আমাদের সীমিত সামর্থ্য দিয়ে বিশ্ব সম্প্রদায়ের উন্নতির জন্য আর্থসামাজিক উন্নয়ন এবং প্রযুক্তিগত অগ্রগতিতে অবদান রাখতে চাই।’ প্রধানমন্ত্রী পুরস্কারের জন্য বিজয়ীর নাম ঘোষণা করেন এবং পুরস্কার ও সনদ বিতরণ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। এ পুরস্কার পেয়েছে এমওটিআইভি ক্রিয়েটিভ লিমিটেড (উগান্ডা)। ক্রিয়েটিভ ইকোনমিতে যুব উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে কাজ করার স্বীকৃতিস্বরূপ এমওটিআইভিকে ৫০ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কার দেওয়া হয়। উগান্ডার কাম্পালায় অবস্থিত এমওটিআইভি একটি সমন্বিত সৃজনশীল স্টুডিও, যা সরঞ্জাম এবং প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে একটি প্রভাবপূর্ণ এবং টেকসই উপায়ে সহযোগিতাকে উৎসাহিত করে।

এ পুরস্কারের উদ্দেশ্য হলো সৃজনশীল অর্থনীতির ক্ষেত্রে যুব উদ্যোক্তাদের উন্নীত করে এমন উদ্ভাবনী প্রকল্প বা কর্মসূচি প্রণয়ন ও বিতরণকারী ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, একটি সত্তা বা বেসরকারি সংস্থার ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বীকৃতি দেওয়া।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরস্কার বিজয়ীর প্রশংসা করে বলেন, ‘ইউনেসকো-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইন্টারন্যাশনাল প্রাইজ ফর ক্রিয়েটিভ ইকোনমি পুরস্কার পাওয়ায় আমি এমওটিআইভি ক্রিয়েটিভ লিমিটেডকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।’এর আগে প্রধানমন্ত্রী ইউনেসকো সদর দপ্তরে পৌঁছালে সংস্থার মহাপরিচালক অঁদ্রে আজুলে তাঁকে স্বাগত জানান।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন